বিশ্ব ইজতেমা ২০১৯ | স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বৈঠকের ফলাফল আগেই জানতেন মাওলানা মামুনুল হক সহ হেফাজত ও বেফাক নেতারা।

দেওবন্দ সফরের নাটক ও আসন্ন বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে রহস্যময় সরকারী চাপিয়ে দেওয়া পূর্ব সিদ্ধান্ত বিষয়ে আগে ভাগেই জানতেন হেফাজতে ইসলাম ও বেফাক নেতারা। মূলধারার তাবলীগের সুরা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম সহ অন্য কেউই এ বিষয় জানতেন না। তাই সরকারের ও হেফাজত নেতাদের কুট কৌশলে ধরাশায়ী হয়েছেন মূলধারার তাবলীগের সাথীরা।

সম্পূর্ণ ভিন্ন মতের আলমী শুরার সংগে একএে ও একই মঞ্চে বিশ্ব ইজতেমার আয়োজনে সম্মতি প্রদান মূলধারার নিজামুদ্দিন অনুসারীদের জন্য সরকার ও হেফাজত নেতাদের পক্ষ থেকে একটি বিরাট ধোঁকা।

বিশ্ব মারকাজ নিজামুদ্দিনের মাশোয়ারা না মানার কারনেই সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম সহ মূলধারার তাবলীগের সাথীরা এমন ধোঁকায় পড়েছেন।

হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হকের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বৈঠকের আগেই এমন একটি পোস্ট থেকে বিষয়টি বেরিয়ে এসেছে।

গত জানুয়ারি ২১ তারিখ সকাল ১১ঃ১৮ মিনিটে মাওলানা মামুনুল হক তার ফেসবুক পেজে উল্লেখ করেন, “যারা আশা করেছিলেন ফজরের পর মাঠে নামলেই কাজ হবে, তারা জানতেন না, কাজ ফজরের আগেই শেষ।

যারা আাশা করেছিলেন, হোম কিংবা রিলিজিয়াস মিনিস্ট্রি অনুকূলে থাকবে, তারা জানতেন না, চাপ এমন জায়গা থেকে আসবে, সামাল দেওয়ার ক্ষমতা তাদের নেই!! ”

অতএব, সুধী সাবধান। ভুলে গেলে চলবে না “হেফাজতে ইসলামের” ইতিহাস। তাছাড়া তাদের পিছনে আছে বেফাক নেতাগন সহ আরো অনেকে।

আর একই সাথে এটাও মনে রাখা উচিত, যারা এ কাজের আমীরকে কাফের বা গোমরা ফতোয়া দিতে দ্বিধা করে না, মিথ্যাকে সত্য বলতে যাদেের কষ্ট হয় না, মানুষ খুন করতে যাদের অন্তর কাঁদে না, তাদের সাথে মিলিত ভাবে কোন কাজেই সফলতা আসবে না।

Advertisements

Darul Uloom Karachi 2019, Pakistan Ulema Ijtema Update

Update Pakistan January 12, 2019

photo editor-20190114_1306522018817682..jpg

An Ijtema of Pakistani Ulema took place in Darul Ulum Karachi (DUK) on January 12, 2019 in which the current situation of the Tabligh Jamaat (TJ) was discussed.

The following participated :

o Mufti Rafi Usmani.
o Mufti Taqi Usmani.
o Mufti Anwar ul Haq – Muhtamim, Darul Ulum Haqqaniah.
o Mufti Fazal Raheem – Muhtamim, Darul Ulum Ashrafiyah.
o Maulana Zahid ul Rashidi – Shaykh ul Hadeeth, Jamiah Nusrat ul Ulum, Gujranwala.
o Mufti Ghulam ur Rahman – Muhtamim, Jamia Usmania, Peshawar.
o Mufti Abdulraheem, Ameer, Jamiat ul Rasheed, Karachi.
o Maulana Hakeem Mazhar – Muhtamim, Jamia Ashraf ul Madaris.
o Maulana Muhammad Tayyib, Muhtamim, Jamiah Imdadiyah, Faisalabad.
o Maulana Dr. Adil – Jamia Faruqia, Karachi.
o Maulana Qazi Abdul Rasheed, Muhtamim, Darul ulum Faruqia, Karachi.
o Maulana Qari MehrUllah.
o Maulana Tanveer ul Haq, Muhtamim, Jamia Ihtishamiyah, Karachi.
o Maulana Imdad Ullah, Ustaz, Binori Town, Karachi
o Maulana Mufti Mahmood Ashraf Usmani, Ustaz and Mufti, DUK.
o Maulana Aziz ur Rahman, Ustaz, DUK.
o Maulana Rahat Ali Hashmi, Education Admin at DUK.
o Mufti Muhammad, Ustaz and Mufti, Jamia tur Rasheed, Karachi.
o Maulana Muhammad Daud, Shaykh ul Hadeeth, Jamia Imdadiyah, Quetta.
o Maulana Dr. Muhammad Zubair Ashraf Usmani, Ustaz, DUK.
o Maulana Muhammad Imran Ashraf Usmani, Ustaz, DUK.
o Maulana Tahir Masud, Ustaz, Jamiah Miftahul Ulum, Sarghoda.
o Maulana Muhammad Khalid Abbasi, Muhtamim, Darul Ulum, Murree.
o Maulana Muhammad Numan Naeem, Deputy Muhtamim, Binori Town, Karachi.
o Maulana Hassan Ashraf Usmani, Ustaz, DUK.
o Maulana Salman ul Haqq, Ustaz, Akora Khatak Haqqaniah.

The following was decided after detailed discussions :

(1) To promptly send a letter addressed to the elders of TJ.

(2) Formation of a committee to meet the responsible people from both sides to find out their positions and try to attempt reconciliation in consultation with the above listed Ulema (the document then lists the names of the committee).

Highlights from letter :

Addressed to elders of Nizamuddin Markaz, Raiwand and Tongi Bangladesh.

Hundreds of thousands of lives have changed positively worldwide due to TJ. Therefore, despite shortcomings, we not only value but support and encourage people of ilm and awwam towards TJ.

However, the recent events and division into two opposing groups plus events in Bangladesh have caused concerns.

Based on Al-Deen al-Naseehah we are requesting the elders from both sides to try to finish these divisions.

We think the way to do this is that both sides put their personal opinions to one side and meet somewhere in spirit of sacrifice.

What is needed is (1) ikhlaas, (2) sacrifice and (3) humility in the heart and to sit down and discuss all disagreements with an open heart.

We think both Ameer and Shura are needed in TJ.

Ameer and Shura should be chosen on basis of mutual mashwara.

We Ulema are happy to assist in this regard.

If the TJ continues divided, there is a danger that the benefit derived from it will be minimized if not closed completely.

Until such reconciliation takes places, both sides’ elders should ensure that their groups continue work of TJ in their way and that other than dua for each other, the people on their respective sides take no negative steps.

Where one side has a majority in a markaz, the other should not forcibly try to enter lest the dawah of Islam is maligned which is the goal of the enemies of Islam.

For the sake of the greater benefit of the deen and with cool-headedness, consider our requests.

We also request Ulema to keep themselves away from current emotional environment and not issues such statements which results in escalation against any one side.

Letter attached: 

Looking Back at 2018 Dhaka World Ijtema, a Heartbreaking History.

The editor is responsible for the opinion. By Editor Sheikh Zaman 

Something about memory-which never forgets.

Tablighi brothers around the world will never forget the memories of the days which took place in Dhaka on 10-13 January 2018, from their heart. Today is January 10 in Bangladesh. My report about the events of 10-13 January 2018, exactly one year ago. The sad and shameful memories that a conscientious man can never forget. It is a day of shame for the nation of Bengal. History teaches people but even after passing a year, we did not learn anything.

What happened in those days?

Whom God has honored all over the world, we have brought them to dishonor. I am talking about the companions responsible for this time, the world Tabligh Amir Maulana Saad Kandhalvi D.B.

The 53rd Biswa Ijtema, 2018 the second largest congregation of the Muslim community after the holy hajj, from January 12-14 and January 19-21, 2018 on the bank of the river Turag, Tongi, Dhaka has lost its heritage for the first time in history. The world Tabligh Amir Maulana Saad Kandhalvi D.B. reached on Wednesday, January 10, 2018 the Dhaka airport by a Thai Airways flight around 12:30pm to attend the Biswa Ijtema. But what we saw was, the USA Congress’s Top Listed Terror Organization Hefazat-e-Islam supporters blockaded the Airport Road in Dhaka on 10 January 2018 protesting his arrival, several thousands of Hefazat-e-Islam supporters gathered in front of the entrance of Hazrat Shahjalal International Airport around 10:00am.

10 January Dhaka Airport

Kandhalvi was taken to Kakrail Mosque under police escort and he was staying at the mosque until his departure from Bangladesh. Terror Organization Hefazat-e-Islam continued to stage demonstration in front of Kakrail Mosque. To resolve the dispute, Home Minister Asaduzzaman Khan called an emergency meeting same day at the secretariat around 3:30pm with the Tabligh Jamaat organizers and the Qawmi Hefazat-e-Islam Alems. After about two hours of discussion, the disputing sides of the Tabligh agreed that Maulana Saad is not going to join the congregation in Tongi. It has also been agreed that the preacher is going to stay at Kakrail Mosque during congregation, and will return to India at a time of his convenience. Devotees from 135 countries didn’t participate in the Ijtema, because the Tongi Ijtema grounds were captured by the militant group Hefazat-e-Islam and their associates Pakistan-based Alami Sura. Everything was out of Bangladesh Government’s control.

Tabligh Jamaat World Amir Maulana Saad Kandhalvi has returned to his country after he was barred from joining Biswa Ijtema, an Islamic congregation, following protests in Bangladesh. He left for India on January 13, 2018 Saturday at 11:45am by a Jet Airways flight.

There is no such problem anywhere in the world, then why in Bangladesh?

Some of the followers of Pakistan Raiwind Markaz challenged the Nizamuddin Markaz, India. First they tried to capture Nizamuddin Markaz on 2015, but they failed. They also failed all over the World. Finally the Pakistan-based Alami Sura targeted Bangladesh.

Since Hefazat-e-Islam militant group are strong in Bangladesh and they have resisted the Bangladesh government in May 5, 2013. Pakistan-based Alami Sura seeks assistance from the militant group Hefazat-e-Islam of Bangladesh for the money. It is mentioned that following the incident on 5 May 2013, the Bangladesh Government surrendered dramatically to the militants Hefazat-e-Islam. BD government has to accept all the demands of the Hefazat-e-Islam. In the face of Hefazat-e-Islam’s pressure, the BD Government returned Tabligh Jamaat World Amir Maulana Saad Kandhalvi. As a result, Hefazat-e-Islam became more aggressive. Riding on other’s back, Pakistan-Based Alami Sura succeed in 53rd Tongi Ijtema, 2018. Pakistan-based Alami Sura’s original purpose was to destroy Tabligh Jammat’s work around the world.

Those Bangladeshi who hide behind the scenes and in the open day are conspiring.

(1) Dr. Abdul Awal :
Dr. Awal is a former Scientist of Bell Labs, USA. He is the Ex-Chairman and presently a Professor of Electrical Engineering and Computer Science Department at North South University. On leave from North South, Dr. Awal is now teaching in the USA as a visiting Professor.

Alami Shura’s one of the international Organizer. He is Bangladeshi-American. Resident in the city of New York. In the year 2016, he captured Nizamuddin Markaz “Masjid Al-Falah” in Queens, New York. It was the 1st succeed of Pakistan-based Alami Sura around the world. In 2018, the World Ijtema ground Dhaka, was captured by his plans and suggestions. Top Hefazat-e-Islam, Bangladesh leaders Maulan Mafuzul Haque and Mamunul Haque are very close relatives to Dr. Awal. He used both brothers to manage Hefazat-e-Islam. From 2016 Dr. Awal continues using Dawatul Haque, New York Mufti Jamal Uddin and New York Shariah Board Mufti Ruhul Amin to destroy this nobel work.

Dr Abdul Awal

(Dr. Abdul Awal)

(2) Maulana Mahfuzul Haque and his sibling Maulana Mamunul Haque :

Mahfuzul Haque is the Principal of Jamia Rahmania Arabia, Muhammadpur, Dhaka. His father Saikul Hadith Allama Azizul Haque was the founder of this Madrasah. He also the top leader of Befaqul Mudarressin of Bangladesh and also the top leader of Bangladesh Khelafat Majlish. Very close associates of Hefazat-e-Islam. Mr. Mahafuzul Haque and his sibling Maulana Mamunul Haque was the top Organizer of Historic Shapla Square protests, or the Motijheel massacre on 5 May 2013. They misused the Bangladesh Qawmi Madrasah Education Board (Befaq) and Madrasah students. Both brothers organised the big protests on January 10 2018, blockaded the Airport Road in Dhaka protesting Maulana Saad Kandhalvi’s arrival.

Both brothers lead Hefazat-e-Islam. They continue to torture innocent Muslims of the country. Terrorist Hefajat Islam is now the country’s biggest threat to the country’s religious freedom. The militants Hefazat-e-Islam is baring everyday countries innocent Muslims from going to the mosque. The government is silent on all matters. Hefazat-e-Islam terrorists groups are manipulating brainwashed young students from Madrasa (Islamic Religious Educational Institution) and providing terror training.

(Terror organizer Mahfuzul Haque)

(Terror Organiser Mamunul Haque)

(3) Mufti Faizullah :

He is the top leader of Hefazat-e-Islam. One of the associates of Maulana Mahfuzul Haque. He also on of the Organizer.

ফয়জুল্লাহ ( Fayzullah)

US Congress placed a bill against Hefazat-e-Islam, Jamaat-e-Islami and other radical groups in Bangladesh. Are the US Government Intelligence Agencies thinking about the top three leaders of the militant group?

Our beloved birthplace Bangladesh is today hostage by stronger militants than Islamist State (IS) group or Taliban.

 

Bangladesh is regressing towards being another Pakistan, if not Afghanistan.

Bangladesh is rushing towards being an Islamic fundamentalist country, where freedom of speech is brutally compromised and paradigm is being shifted from a secular country which once wanted to be different than Pakistan and therefore got separated in 1971 to a radical fundamentalist one similar to Pakistan.

For many years Bangladesh was an exception in the Islamic world, pursuing an independent course in a peaceful, secular, and democratic fashion. Traditionally, under Bengali Sufi mystical teachings, the majority Muslim population lived peacefully with other religions, and Bangladesh had a good record on education and civil rights for women.

After the fall of the dictator Ershad on 6 December 1990, Awami League and BNP, the two main political parties in Bangladesh, have always used extremist Islamist groups to gain power.

Like BNP used Jamaat-e-Islami and JMB.

Now, AL Government maintaining good ties with extremist militants group Hefazat-e-Islam and other Islamist parties because of upcoming national election for Islamist voter banks.

Islami Oikya Jote, Bangladesh Khelafat Majlish, Khelafat Andolan, Islami Andolan Bangladesh, Islami Oikya Andolan, Jamiatul Ulama Islam, and several other Islamist parties are politically active under the banner of Hefazat. Islami Oikya Jote, Bangladesh Khelafat Majlish, Khelafat Andolan, Islami Andolan Bangladesh, Islami Oikya Andolan, Jamiatul Ulama Islam, and several other Islamist parties are politically active under the banner of Hefazat. Awami League has already developed good political standing with these parties through Hefazat. Hefazat has been in dialogue with the ruling party since the 2013 Motijheel mayhem.

“Operation Siqure Sapala” (অপারেশন সিকিউর শাপলা) ” could not stop the militant activities from the country. Now we forgotten who led the militant activists in “Sapla Chattar” of Motijheel, Dhaka on 5th and 6th May of 2013?

 

Following the incident on 5 May 2013, the Government surrendered dramatically to the militants “Hefajat Islam”.

Because of that the nation begins to think, is it Hifazat Islam and Government’s has militant connection? When the suspicion is further intensified, when the government comes to power without any election in the state on January 5, 2014. May 5 2013 to January 5 2014, Just eight months apart, the National Election.

 

The events of May 5 2013 when the whole country was silenced. When the general people and the political parties were terrified of fear, the government took the opportunity to play the election on the empty field January 5 2014. Not only that, the government has to accept all the demands of the Hefazat-e-Islam.

In the face of Hifazat’s pressure, the authorities removed a ‘Lady Justice’ statue from the Supreme Court premises last year.

The government has also recently accorded a top Qawmi madrasa degree the status of post-graduate degree.

As a result, Hefajat Islam became more aggressive.

Apart from minority communities, Hefazat-e-Islam continue to torture innocent Muslims of the country. Terrorist Hefajat Islam is now the country’s biggest threat to the country’s religious freedom. Along with the Hindu religion’s the militants Hefazat-e-Islam is baring everyday countries innocent Muslims from going to the mosque. The government is silent on all matters. Hefajat terrorists groups are manipulating brainwashed young students from Madrasa (Islamic Religious Educational Institution) and providing training to do such things but you still can’t talk about renovating and modernizing Madrasa education system. Right away you will be labeled as a ‘blogger’- apparently which means ‘atheist’ nowadays in Bangladesh.

There is no way of seeking justice for the people. On December 1, 2018, when innocent Muslim protesters went down the road, the militants Hefazat-e-Islam’s student group killed 1 person, injured more than 200 people in the capital of Dhaka. Bangladesh is increasingly the site of Islamist violence.

 

Recently US Congress placed a bill against Hefazat-e-Islam, Jamaat-e-Islami and other radical groups in Bangladesh. It also calls on the United States Agency for International Development and the State Department to halt all partnerships and funding arrangements with groups affiliated with the Jamaat, Shibir, and Hifazat.

Are the US Government Intelligence Agencies thinking about the top three leaders of the militant group? Top three are: 

(1) Mamunul Haque:

মামুনুল হক ( Mamunul Haque)

photo editor-20181204_071441164016740..jpg (2) Mafuzul Haque:

মাহফুজুল হক ( Mafuzul Haque) (3) Faizullah: 

ফয়জুল্লাহ ( Fayzullah)

The House of Representatives has referred the Bill to the House Committee on Foreign Affairs.

We thank the USA Government on behalf of the oppressed Bangladeshi population for this bill. We thank Mr. Jim Banks too.

Jim Banks

Now seeing the issue, will the Government of Bangladesh respond to the call of the government of the USA to stop the activities of militant Hefazat Islam?

 

 

 

 

 

 

 

হেদায়েতের পূন্যভূমি “বিশ্ব ইজতেমা টঙ্গীর মাঠে” জঙ্গিদের থাবা। পদত্যাগ নয়, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর গ্রেফতার দাবী।।

শহীদ মন্ডলরক্তাক্ত টঙ্গী। শেখ জামান।

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী।

হেদায়েতের পূন্যভূমি “বিশ্ব ইজতেমা” টঙ্গীর মাঠে জঙ্গিদের থাবা। রক্তের হোলিখেলায় মেতে উঠেছে দখলদার বাহিনী। দখলদারদের পৃষ্ঠপোষকতায় খোদ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী কি তার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও তার সরকারের জংগী কানেকশনে জড়িত “হেফাজতে ইসলাম” এর জঙ্গিদের বিরুদ্ধে নিরীহ তাবলীগের সাথী ইসমাঈল মন্ডল (৭০) কে হত্যার বিষয়ে হত্যায় মামলা রুজুতে ও তাদের গ্রেফতারে বাঁধা হয়ে দাড়াবেন?

গত বিশ্ব ইজতেমা জানুয়ারি ২০১৮ থেকেই খোদ সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় তথা জনাব আসাদুজ্জামান খাঁন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্লপ্ত ভূমিকায় বাংলাদেশে মূলধারার তাবলীগ নিধনে মরিয়া হয়ে উঠেছে ৭১ সালের পরাজিত হানাদার দখলদারদের দোসর “হেফাজত ইসলাম” এর ভন্ড তেঁতুল হুজুর খ্যাত শফি, তার অনুসারী ওলামা-আস-সূ ফয়জুল্লাহ, খেলাফত মজলিশের ওলামা-আস-সূ মাহফুজুল হক, তার সহোদর বাংলার বিড়াল খ্যাত ওলামা-আস-সূ মামুনুল হক, ফতোয়াবাজ ওলামা-আস-সূ মুনসুরুল হক, আবদুল মালেক, চটি বাবা ওলামা-আস-সূ ওবায়েদুল্লাহ ফারুক, ওয়াজ মাহফিলের নামে লন্ডন -আমেরিকা চষে বেড়িয়ে নিজ পকেট ভারীতে পারদর্শী জর্দাপুরী খ্যাত ওলামা-আস-সূ ওলিপুরী গং। যারা স্ব-ঘোষিত পাকি আলমী শুরার বাংলার মীরজাফর হেভিওয়েট ওলামা-আস-সূ যোবায়ের গংদের শক্তিশালী করার এক মিশন নিয়ে মোটা টাকার বিনিময়ে কাজ করে যাচ্ছে। আর এদের সকলের পিছনে রয়েছে অদৃশ্য এক শক্তি। যে অদৃশ্য শক্তি পৃথিবী জুড়ে এই মোবারক মেহনত ধবংসের খেলায় মেতে উঠেছে।

 

 

যারই ধারাবাহিকতায় অদৃশ্য শক্তি ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ এর বর্তমান প্রধানকে ব্যাবহার করে। ভারতের মোদী সরকারকে ঘনিষ্ট ওলামা-আস-সূ মুফতি খ্যাত কাজ্জাব “ওজাহাত কাসেমী” কে দিয়ে তাবলীগের বিশ্ব আমীর হযরত মাওলানা সাদ সাব দাঃবাঃ এর বিরুদ্ধে কাটপিস বয়ান দিয়ে ফতোয়া চেয়ে এই মোবারক মেহনতের ধবংসের সূচনা করে।

অদৃশ্য শক্তি পাকিস্তানের কতিপয় ওলামা-আস-সূ ও ভারতের গুজরাট এর জনাব আহমদ লাট কে তাদের আইডল হিসাবে ২০১৬ সালে আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু করলেও, ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাজ দখলে ব্যর্থ হয়ে বিভিন্ন কৌশল খুঁজতে থাকে। এমনকি পাকিস্তানেও তারা সুবিধা করতে না পেরে, ভারত ও পাকিস্তানের পর তারা বাংলাদেশ কে বেছে নেয়।

বাংলাদেশ কে ব্যাবহারে অদৃশ্য শক্তি প্রথম খুঁজে পায় নিউইয়র্ক শহরে বসবাসকারী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম ডিজিটাল আাই,ডি প্রোজেক্টের উপদেষ্টা, পরীক্ষিত তাবলীগের সাথী, সাবেক আমেরিকার নাসার প্রকৌশলী, বাংলাদেশের নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালকদের একজন জনাব ড. আবদুল আওয়াল সাহেবকে।

নিউইয়র্ক শহরে তাবলীগের সাথীদের খুবই কাছের মানুষ ছিলেন এই ড. আওয়াল। একই সংগে দাওয়াতের কাজের সুবাদে বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রয়েছে তার ব্যাপক পরিচিতি। তাছাড়া ড. আওয়াল Bangladesh Youth Environmental Initiative (BYEI) এর Advisory Board এর সদস্য হিসাবে বাংলাদেশ সরকারের সাথে রয়েছে সখ্যতা। এ সকল বিষয় বিবেচনায় অদৃশ্য শক্তি ড. আওয়ালের সহায়তায় প্রথম সফলতা পায়। শুরু হয় বিশ্ব ব্যাপী আলমী শুরার অফিসিয়াল সফলতা। পৃথিবীর মধ্যে প্রথম নিউইয়র্ক শহরের মারকাজ দখলের মধ্য দিয়ে ফেতনা বাজ আলমী শুরা তাদের কব্জায় নেয় নিজামুদ্দিনের মারকাজ মসজিদ ” আল-ফালাহ”। ২০১৭ সালে পৃথিবীর প্রথম আলমী শুরার সফল ইজতেমাও করেন এই ড. আওয়াল আমেরিকার পেনসিলভেনিয়া, যেখানে মাওঃ ইবরাহীম দৌলা সাহেবকে ভারত থেকে আনা হয়। ২০১৭ সালে কানাডার অন্টারিও তে পাকিস্তানের মাওঃ তারিক জামিল সাহেবকে দিয়ে আলমী শুরার প্রথম সফল জোড় করান এই ড. আওয়াল। একের পর এক সফলতার পর ড. আওয়ালকে দায়িত্ব দেওয়া হয় ২০১৭ সালের বিশ্ব ইজতেমা টঙ্গীর মাঠ দখল ও বিশ্ব ইজতেমায় আমীর মাওঃ সাদ সাহেবের বাংলাদেশ আগমন ঠেকানোর।

ড. আওয়াল আমেরিকার নিউজার্সির একজন সিনেটর এর চিঠি ব্যাবহার করে ২0১৭ সালের বিশ্ব ইজতেমায় আমীর মাওঃ সাদ সাহেবের ভিসা বন্ধ করার চেষ্টা করেন। কিন্ত ভিসা বন্ধ করতে না পারায় ড. আওয়াল ঐ বছরই হেফাজত আমীর শফি সাহেবের সাথে দেখা করেন। এবং তার নিজ ছেলের পক্ষের আত্মীয় খেলাফত মজলিশের মাহফুজুল হক ও মামুনুল হকদের সহ হেফাজত নেতাদের সাথে ২০১৭ সালের বিশ্ব ইজতেমা বন্ধ করার জন্য একাধিক কৌশল নেন। যেটা ২০১৭ বিশ্ব ইজতেমার পর আমেরিকা ফিরে মসজিদ আল-ফালাহ তে নিজ মুখে বয়ান করেন। এ কাজে নিউইয়র্ক শহরের দাওয়াতুল হকের মুফতি জনাব জামাল উদ্দিন তাকে সহায়তা করেন। আর একই সময়ে দাওয়াতুল হকের বাংলাদেশের আমীর মাহমুদুল হাসান সাহেবকেও ব্যাবহার করেন। জানা যায়, জনাব মাহমুদুল হাসান সাহেব ও নিউইয়র্ক এর মুফতি জামাল উদদীন পরস্পর আত্মীয়। আর অন্যদিকে খোদ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পীর সাহেব হলেন জনাব মাহমুদুল হক সাহেব।

ইত্যাদি বিষয় কাজে লগিয়ে ২০১৭ সালের বিফলতা ২০১৮ সালের সফলতা বয়ে আনে। রাতারাতি হিরো বনে যান আলমী গুরু ড. আওয়াল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে কাজে লাগিয়ে ভারতে ফিরিয়ে দেন ওয়ার্ল্ড আমীর মাওঃ সাদ সাহেবকে।

এই সকল ধারাবাহিকতায় আলমী শুরা “ওজাহাতি জোড়ের” নামে মাদ্রাসার ছাএদের দিয়ে একের পর এক মসজিদ, মারকাজ দখল শুরু করে। কাকরাইল মারকাজে মাওঃ যোবায়ের ও সৈয়দ ওসিফুল ইসলাম কে নিষিদ্ধ করলেও, এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পুলিশ পাহারায় মাওঃ যোবায়ের কে কাকরাইল মসজিদে আসা যাওয়ার সুযোগ করে দেয়। একের পর এক বাধার মুখেও সরকারের উচ্চ মহল, তাবলীগের মূলধারার সাথীদের সহযোগিতা না করে, উৎসাহিত করতে থাকে হেফাজতের ছএছায়ায় থাকা আলমী শুরাদের।

এমতাবস্থায় ধর্ম মন্ত্রণালয় গত কয়েকমাস আগে একটি সুন্দর পরিপএ জারী করলেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে পরদিন পরিপএটির অকাল মৃত্যু ঘটে। কাকরাইলে জ্যামার বসানো সহ মূলধারার শুরাদের মারপিটের বিষয়েও সরকারের নিরবতা জাতিকে ভাবিয়ে তোলে।

জেলায় জেলায় সফল ইজতেমা বন্ধ করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দুই পক্ষের সাথে মাএ কয়েক সপ্তাহ আগে বৈঠক করেন। বিশ্ব ইজতেমা সহ জেলা ইজতেমা, ওজাহাতি জোড়, ওয়াজ-মাহফিলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। তাবলীগের মূলধারার সাথীগন সব মেনে নিলেও, ওজাহাতি জোড় চলছেই।

টঙ্গীর ময়দানে মূলধারার তাবলীগ সাথীদের ৫ দিনের জোড় বন্ধ করার জন্য মাদরাসার ছাএদের দিয়ে ওলামা-আস-সূ গন গত ২ সপ্তাহ যাবত টঙ্গী মাঠ গেট বন্ধ করে পুলিশী সহয়তায় দখলদার বাহিনীর মতো দখল করে আছে, অথচ নিরহ মূলধারার সাথীগন যখন গত ৩/৪ দিন আগে সরকারের সহায়তা চেয়ে ঢাকায় সাংবাদিক সম্মেলন করলেন, প্রধান মন্ত্রীর সরাসরি সহায়তা কামনা করলেন, যখন দেশী-বিদেশী পএিকায় এ বিষয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট প্রকাশ পেল, তার পরও সরকার ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিরব কেন? কেন গত সপ্তাহে সরকার কোন ব্যাবস্থা নিলেন না বরং হেফাজত জংগীদের পুলিশ পাহারার ব্যাবস্থা করে দিলেন?

এসবের মানে কি? সরকারের জংগী কানেকশন হেফাজত। তাদের দিয়েই সরকার আগামীতে দেশ শাসন করতে চায়।

আমরা কি টঙ্গীর হত্যা কান্ডের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দায়ী করতে পারি না?

হেদায়েতের পূন্যভূমি "বিশ্ব ইজতেমা" টঙ্গীর মাঠে জঙ্গিদের থাবা।

আমরা কি হেফাজত ও তাদের দোসর ওলামা-আস-সূ দের এই হত্যা কান্ডের জন্য দায়ী করতে পারি না? যোবায়ের গ্রেফতারের দাবীতে জেগে উঠেছে জনতা।

কি ভাবে ড. আওয়াল এই হত্যা কান্ডের দায় হতে মুক্তি পেতে পারে? বাংলাদেশে এই বিশৃঙ্খলার জন্য অন্যতম দায়ীদের একজন সে। হলিঅটিজান হত্যা কান্ডে তার নাম এলেও এ ভাবে সে বাদ পড়ে যায়।

তাহলে কি আমরা বলবো অদৃশ্য শক্তির কাছে দাওয়াতে তাবলীগের এই মোবারক মেহনত একদিন থেমে যাবে?

Madrassa students take possession of the Tongi World Ijtima field, the purpose is to foil the world Ijtema & Tongi Upcoming 5 Days Jore. Behind the BD Home Minister, Hefazat-e-Islam, are some political Ulama’s, and Pakistani Agents.

The destruction of Mainstream Tabligh Jamat is going on very fast in Bangladesh. It was started directly by the Bangladesh Government Home Minister’s patronization since January 2018 at the time of World Ijtima. BD Home minister, Hefazat-e-Islam, and Madrasa base some political Ulama’s, and Alami Sura Pakistani agent World Guru Dr. Abdul Awal are trying to destroy the mainstream Tabligh Jamaat in Bangladesh.

The Tabligh-Jamaat mainstream elders are demand at a press conference at Dhaka Reporters Unity in the capital today morning.

A five-day old workers Jore from November 30 to December 4 2018 is necessary for organising the World Ijtema from 11-13 January 2019, said Maulana Md Abdullah, a leader of the mainstream Tabligh Jamaat, Dhaka.

On November 15, Home Minister Asaduzzaman said that the Ijtema will not be held as per its schedule this year due to the national election which is scheduled to be held on December 30. This is the 1st time in Tabligh Jamaat history that political government involved to restrain the nonpolitical Tabligh Jamaat.

A new date for the Ijtema will be decided after the election, the Home minister added. Home minister strongly backed Hefaza-e-Islam and because of him the mainstream companions of the innocent Tablighi are disturbed everyday. Today’s Press Conference the mainstream Tabligh Jamaat seeks PM’s (Sheikh Hasina) intervention.

It should be noted that on January 5, 2014 the 10th parliamentary elections were completed. Then the election was held under the same government. And in January right after the election same month there was World Ijtema 2014 and was very peaceful but now why the BD Home minister make it different? What is behind?

It was claimed at the press conference that some political Ulama’s, using Darul Uloom Deoband’s name, tried to dispute a non-political organization such as Tabligh. But Darul Ulum Deoband has said that they will not interfere in the internal affairs of Tabligh Jamaat. This year around the Globe more than 200 Ijtima was peacefully completed along with the Europe Biggest Ijtima. Even the country’s of Deobond India has completed world biggest Ijtima like “Aurangabad Ijtima”, “Bhopal Ijtima”. Thousands Ulama’s are attended. There was no conflict around the Globe except some conflict in Raiwind, Pakistan. So some Pakistani agent they use innocent Madrassa students and misguided the BD Government Home minister.

At present, 4-5 thousands Madrasah students is in the Tangi ground with bamboo stick weapon. Bloody clashes can occur on November 30 when mainstream innocent Tabligh companions are enter the field. In this situation, the people of the country are waiting to see the next step of the government.