After New Zealand Attacks, Muslim-Americans Call For Action Against Rising Bigotry

NPR:

As New Zealand grapples with the aftermath of the attack on two Muslim congregations in Christchurch, the mass shootings on the other side of the world have struck fear through Muslim-American communities and renewed calls for action against the rise of bigotry in the U.S.

Muslim-Americans urged political leaders, local officials and tech companies to confront the alarming spread of hate and racism that in recent years has led to scores of worshippers being slaughtered in religious institutions.

At a press conference in Washington, D.C., Friday, Council on American-Islamic Relations Executive Director Nihad Awad demanded President Trump unequivocally condemn the attacks, saying his words and policies “impact the lives of innocent people at home and globally.”

“You should condemn this not only as a hate crime, but as a white supremacist terrorist attack,” Awad said.

“You need to assure all of us — Muslims, blacks, Jews, immigrants — that we are protected and you will not tolerate any physical violence against us because we are immigrants or we are minorities. You need to condemn this clearly today and you do not need to be vague. You have to be very clear on this.”

The alleged shooter, who is now in custody along with two others, live-streamed the massacre over Facebook. In the end, at least 49 people were killed and another 48 are being treated in hospitals.

“You need to condemn this clearly today and you do not need to be vague. You have to be very clear on this.”

Nihad Awad, Council On American-Islamic Relations

In writings outlining his beliefs, the Australian man described himself as a 28-year-old claiming to represent Europeans and whites in a battle against immigrants — people he repeatedly called “invaders.” Throughout the screed, which he posted to several sources online, he cited his hatred for Islam and referred to the U.S. Constitution’s Second Amendment, arguing that attempts by the government to take away guns will lead to civil war.

Awad of CAIR alluded to President Trump’s proclivity for hyper-nationalist and xenophobic rhetoric on the campaign trail and as president and placed some of the blame for the ambush in New Zealand, at his feet.

“During your presidency and during your election campaign, Islamophobia took a sharp rise and attacks on innocent Muslims, innocent immigrants and mosques have skyrocketed,” Awad said. “We hold you responsible for this growing anti-Muslim sentiment in the country and in Europe, but also we do not excuse those terrorist attackers against minorities at home and abroad.”

Similarly, Muslim Advocates, a national civil rights group, urged Trump to disavow the attackers and the white nationalist movement in general, which they say invoke the president as an inspiration and a symbol of the white identity movement.

“In the wake of this heartbreaking, anti-Muslim mass slaughter, it is clear that more needs to be done to protect Muslims and all vulnerable communities from the very real dangers posed by hate and white nationalists. … It is time for President Trump, elected officials, law enforcement and tech companies to act,” Farhana Khera, the group’s executive director, said in a statement.

Khera noted Trump’s 2017 comments following the deadly Unite the Right rally in Charlottesville, Va., in which the president referred to neo-Nazi and white nationalist protesters as “very fine people.”

“This hate-filled murderer,” she said, referring to the Christchurch shooter, “drew inspiration from Trump, and the white nationalist movement has celebrated Trump’s words and policies.”

With hate crimes motivated by anti-Muslim bigotry rising to historic levels in recent years in the U.S., Khera said the FBI must “prioritize the prevention, detection, investigation and prosecution of right-wing, white nationalist violence — the most significant threat to public safety in our nation today.”

Additionally, social media platforms and tech companies like Facebook, Twitter and Google, which hate groups use to disseminate vile messages of prejudice and violence, and build their membership, need to do more to detect and shut down online objectionable content, Khera said.

Facebook moved quickly to take down the horrific video capturing the bloodshed in real time, as well as the alleged shooter’s Facebook and Instagram accounts. But by the time it did so, there was little the company could do to stop internet users from re-uploading the video to YouTube, Twitter, Reddit and other online platforms.

“The New Zealand shooter was able to livestream a 17-minute video of his murderous rampage that continues to spread like wildfire online. This is flatly unacceptable. Tech companies must take all steps possible to prevent something like this from happening again,” Khera said.

Sen. Mark Warner, (D- Va.), also pointed to the social media platforms as inadvertent facilitators of heinous ideology.

“The rapid and wide-scale dissemination of this hateful content — live-streamed on Facebook, uploaded on YouTube and amplified on Reddit — shows how easily the largest platforms can still be misused,” Warner told The Washington Post. “It is ever clearer that YouTube, in particular, has yet to grapple with the role it has played in facilitating radicalization and recruitment.”

Twitter and Youtube have both condemned the attacks and said they are working to bring down any video of the shooting.

Trump on white nationalism

Speaking to reporters on Friday afternoon, President Trump denied white nationalism poses an increasingly dangerous global threat.

“I think it’s a small group of people that have very, very serious problems, I guess. If you look what happened in New Zealand, perhaps that’s the case. I don’t know enough about it yet…But it’s certainly a terrible thing,” he said.

He made the remarks shortly after signing the first veto of his presidency — a move that allows him to declare a national emergency along the southern border and pump billions of dollars into the construction of a wall, which he has said is being overrun by criminals seeking to harm Americans.

“People hate the word invasion, but that’s what it is,” Trump said Friday.

Friday prayers

Muslims, who gathered for Friday prayers at mosques around the country, were unified in their grief over the tragedy and their refusal to be intimidated.

In New York City, the Islamic Cultural Center opened its door wide, and spread prayer mats in the courtyard for an overflow crowd.

Reem Elsobky, a doctor visiting from Toronto, told NPR she felt it was important to attend prayers at the mosque after learning about the carnage in New Zealand “because we’re not going to be afraid to come to our prayer places.”

“Everyone should feel safe when they pray,” she said.

Elsobky recalled a similar attack in Canada in 2017, when a gunman opened fire at a mosque in Quebec City. The memory still haunts her. “Unfortunately, every time I go to the mosque in Canada in downtown Toronto, I think about it.”

“Do I bring my kids or not?” she often wonders. But in the end, she said people should not be deterred by the possibility of violence. “You can’t live your life in fear.”

Burjan Ugural, a New York City taxi driver, said the shooters in New Zealand should be considered terrorists. “Terror has no nationality. Terror has no religion. Nobody can say this is ‘Islamic terror,’ this is Catholic terror.’ Terror is terror.”

Faith leaders of other religions stopped by the mosque to offer their condolences.

Rabbi Elliot Cosgrove of the nearby Park Avenue Synagogue bought a massive bouquet of white flowers. He said his congregation hasn’t forgotten at the mass shooting at a synagogue in Pittsburgh last year.

“The Jewish community knows, with the Pittsburgh shooting, what it means to have the promise of synagogue ripped out from under you,” Cosgrove said.

In Washington, D.C., Areeba Khan, an intern for Democratic Sen. Chris Coons of Delaware, attended the Friday prayer services offered at the Capitol.

“It’s a blessed day and to find out that that occurred, it really impacted me personally … it made me feel really scared in the moment,” Khan told NPR, adding that she found it comforting to be surrounded by members of the Muslim community.

Emad Alsagheer, a federal contractor for the Federal Trade Commission, said he first learned of the shooting when his friend texted him the livestream video of the attacker. As an immigrant from Syria, he didn’t expect events like the New Zealand attack to happen outside of war zones.

“I do not expect these things to actually happen in a peaceful community where the people are not in a war, or in a war zone,” Alsagheer said. “I actually left [Syria] because it was being bombed … I’ve been in very bad situations, I witnessed a lot of horrible things, but this was really a shock to me because I wasn’t prepared to see.”

Heightened security

Although Homeland Security Secretary Kirstjen Nielsen said there are no “current, credible” threats against Muslim communities in the U.S., officials tightened security at mosques around the country.

The New York Police Department’s counterterrorism unit stationed heavily armed officers outside a number of New York City mosques and other religious institutions.

“To the Muslim community here in new York: we stand with you always, and we will remain vigilant in keeping you safe — and making sure you feel safe too,” Police Commissioner James O’Neill said in a statement.

Advertisements

Muslims are still linked to the 9/11 attacks due to the vicious media coverage that followed. Now with the Christchurch attacks being conducted by people from Christian backgrounds, it’s time to disentangle religion from terrorism.

Christchurch attack: Why we should stop associating Islam with terrorism?

 

With bated breath, Muslim communities around the world waited to hear how Friday’s mass shootings in Christchurch, New Zealand, would be characterised.

 

Initially, New Zealand’s Prime Minister Jacinda Ardern condemned it as “one of New Zealand’s darkest days”, and “an extraordinary and unprecedented act of violence”.

When pushed by reporters for a better description of the attacks, she repeated: “I would describe it as an unprecedented act of violence. An act that has absolutely no place in New Zealand. This is not who we are.”

At least 49 people were killed in attacks on two mosques in the coastal New Zealand city of Christchurch, including one mosque’s imam, with around 20 others injured. They had gathered for the weekly Friday congregational prayer.

It wasn’t until a couple of hours later that the Australian and New Zealand prime ministers publicly referred to the shootings as terrorist attacks.

“It is clear that this can now only be described as a terrorist attack,” Ardern said. “These are people who I would describe as having extremist views that have absolutely no place in New Zealand.”

Other countries who were among the first to do the same were Indonesia, Pakistan and Turkey, with Jakarta having the closest relative proximity to New Zealand.

The statements may have elicited reactions of consolation that an attack on Muslims was also being labelled as terrorism, but do they still have an element of hypocrisy, not by what they’ve stated, but by what they’ve left out?

Generally when a Muslim is the perpetrator of an attack, his race, origins, and religion make immediate headlines. In this case, one of the shooters, Brenton Tarrant, has not been referred to as a “white terrorist” or a “Christian terrorist”, even though his detailed 74-page manifesto has clear racial and religious references.

He wrote a specific message “To Turks.” In it, he said: “You can live in peace in your own lands, and may no harm come to you. On the east side of the Bosphorus. But if you attempt to live in European lands, anywhere west of the Bosphorus. We will kill you and drive you roaches from our lands. We are coming for Constantinople and we will destroy every mosque and minaret in the city. The Hagia Sophia will be free of minarets and Constantinople will be rightfully christian owned once more. FLEE TO YOUR OWN LANDS, WHILE YOU STILL HAVE THE CHANCE.”

In another message addressed “To Christians”, he wrote: “The people worthy of glory, the people blessed by God Our Lord, moan and fall under the weight of these outrages and most shameful humiliations. The race of the elect suffers outrageous persecutions, and the impious race of the Saracens respects neither the virgins of the Lord nor the colleges of priests. They run over the weak and the elderly, they seize the children from their mothers so that they might forget, among the barbarians, the name of God. That perverse nation profanes the hospices … The temple of the Lord is treated like a criminal and the ornaments of the sanctuary are robbed. What more shall I say to you?”

Through these statements, it is clear that Tarrant deliberately and carefully planned an attack against a specific type of people that he didn’t approve of.

No religion should come under attack as a result of violence committed by its adherents, but why has the term “Islamic terrorist” been normalised? Has this become a form of psychological warfare from the echelons of power, in an attempt to create some form of word recognition associating Islam with terrorism, without implicating anyone else in identical situations?

In her initial press statement, Ardern had said: “Many of those directly affected may be migrants to New Zealand. They may even be refugees here. They have chosen to make New Zealand their home, and it is their home. They are us.”

Although these are words of embrace and inclusion, they do not mention Muslims as the victims, even though it was already clear that the attacks were at local mosques and occurred at the time of Friday prayers.

Even in what has become common language, certain Christians with dreams of institutionalising their religion are called ‘evangelicals’ with no mention of Christianity, while Muslims are referred to as ‘Islamists’, with their religion implicated in the term.

When the perpetrators of such terror attacks turn out to be Muslims, it becomes common among journalists and TV anchors to use terms like ‘Islamic terror’, ‘Islamic fundamentalism’ and ‘pan-Islamism’ and spend a lot of air time holding debates about the dangers of what many describe as an ‘Islamic Caliphate’. At times to sensationalise primetime shows, analysts espousing far-right views are given space to make insinuations about Muslims and immigrants.

The irony is also completely lost upon the world that one of the words that ‘Islam’ derives from is ‘salaam’ which means ‘peace’, whereas Islam has been associated with violence by people with political agendas. Other terms such as ‘white supremacist’ also don’t use the combination of ‘white terrorist’, as opposed to the common use of ‘Arab terrorist’.

The same often happens along racial lines when covering crimes in places like the United States. Crimes of theft and violence implicate black offenders, but after the Colorado theatre shooting in July 2012, James Holmes was not described as a ‘white shooter’.

In the wake of violent attacks, religious leaders, racial activists, and the general public tend to reach across the aisle to stand in solidarity with the groups affected by violent events.

For example on Friday, well-known Australian Anglican priest Father Rod Bower tweeted: “From Christ Church Gosford to #Christchurch New Zealand. Salam (peace) to the fallen. Salam to the injured. Salam to the grieving. Salam for our future.”

But the media and politicians are yet to follow suit on the equitable use of words when describing politically, racially, and religiously charged situations and tragedies.

বিশ্বজনীন তাবলীগ জামাতঃ ব্যতিক্রম বাংলাদেশ।

লেখকঃ আবু ওবায়দুল্লাহ, নিউইয়র্ক।

প্রারম্ভিকাঃ

আজ থেকে ৩০ বছর আগে দেশ ছেড়ে আমেরিকায় পাড়ি জমিয়েছি। কিন্তু মন সব সময় পড়ে থাকে দেশের বাড়িতে। দেশের কোন ভাল সংবাদ পেয়ে মনটা ভরে যায়। আর যখন কোন দুঃসংবাদ শুনি অকপটে চোখ দুটি সিক্ত হয়ে আসে। বাচ্চারা বলে আব্বু তুমি ঘরে এসেই বাংলাদেশের খবর নিয়ে ব্যস্ত থাক কেন? আমি বলি, যে দেশের আলো, বাতাস, মাটি, পানিতে এই শরীর তৈরি হয়েছে তাকে কি করে ভুলি। বাংলাদেশ কোন সময়ই বিশ্বে প্রথম হতে পারবে না, এটা কঠিন সত্য। কিন্তু ধর্মীয় দিক থেকে, বিশেষ করে তাবলীগ জামাতের মেহনতের দিক দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে প্রথম স্থান অধিকার করে রেখেছিল। বিশেষ করে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা বিশ্বের সব দেশের মুসলমানদের মন কেড়ে নিয়েছিল। কিন্তু শয়তানের বদ নজর থেকে এটা রেহাই পায়নি। সার্কভুক্ত আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলোর নজরে এটা ছিল এক হিংসার কারন। বর্তমানে তারা কামিয়াব হয়েছে এটা অস্বীকার করার উপায় নেই। পাকিস্তান থেকে উদ্ভব “আলমী শুরা” নামে এক ষড়যন্ত্র কমবেশি প্রায় অনেক দেশেই চলিতেছে। এটা নতুন কিছুই নয়। তাবলীগের ভিতর ঘাপটি মেরে পড়ে থাকা ষড়যন্ত্রকারী একটি বিশেষ গ্রপ দীর্ঘ ৩০-৩৫ বছর ধরে তাবলীগ ধ্বংসের চেষ্টা করে যাচ্ছে। যেটা প্রায় ৩০-৩৫ বছর আগ থেকেই আমরা গুনগুনানি শুনেছি। কিন্তু এর প্রভাব আজ অবধি বিশ্বের কোন দেশে তেমন নজরে আসেনি। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ৭০ ভাগ দেশে ষড়যন্ত্রকারী এই গোষ্ঠী “আলমী শুরা” এর অবস্থান শূন্যের কোটায়। বাকী যে ৩০ ভাগ দেশ আছে, সেখানে তাদের ৫ শতাংশ লোকও নাই। আজ অবধি বাংলাদেশ ছাড়া পৃথিবীতে কোথাও কোন সামান্যতম অপ্রীতিকর ঘটনাও শুনতে পায়নি। পুরা দুনিয়ায় যে বিষয়টা চলিতেছে, সেটা হলো, ইমারত ও শুরা নিয়ে। কিন্তু শুধু বাংলাদেশেই এর রুপ হলো ভিন্ন। “ওলামা” ও “আওয়াম”। এখন প্রশ্ন হলো, বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশ কেন ব্যতিক্রম?

আসুন কতকগুলি “কেন” একএিত করে এর রহস্য উদঘাটন করি।

(১) সারা দুনিয়াতে সমস্যা হলো “ইমারত” ও “শুরা”। বাংলাদেশে ” ওলামা” ও “আওয়াম” কেন?

(২) সারা বিশ্বে কোথাও কোন ঝগড়াঝাটি বা মারামারি নাই কিন্তু বাংলাদেশে হেদায়েতের পূণ্য ভূমি টঙ্গীর ময়দানে শহীদের রক্ত ঝরলো কেন?

(৩) পুরো বিশ্বে “আলমী শুরা” এখন পর্যন্ত বড় ধরনের কোন মজমা কায়েম করতে পারে নাই। তবে এ বছরই বাংলাদেশে প্রথম টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে রাষ্ট্রীয় ভাবে স্বীকৃতি পাইলো কেন?

(৪) সারা দুনিয়ায় কোন দেশেই সরকার বা প্রশাসন তাবলীগের কাজে হস্তক্ষেপ করে নাই কিন্তু বাংলাদেশে এর ব্যতিক্রম হলো কেন?

(৫) মাওলানা সাদ সাহেব দাঃবাঃ পুরো দুনিয়ায় দাওয়াতের মেহনতে চষে বেড়াচ্ছেন। প্রায় প্রত্যেক সপ্তাহে কোন না কোন দেশে ইজতেমা হচ্ছে। ঐ সকল ইজতেমায় লাখ লাখ থেকে কোটি কোটি দেশী-বিদেশী মানুষের উপস্থিতি হচ্ছে। ঐ সকল ইজতেমায় মাওলানা সাদ সাহেবকে বাঁধা দেওয়ার সামান্য একটা নজিরও নেই। এমতাবস্থায় মাওলানা সাদ সাহেবের বাংলাদেশে আসতে মানা কেন?

(৬) বিগত ৫৪ বছর যাবত টঙ্গী ইজতেমায় ৩০-৪০ হাজার বিদেশি মেহমান আসেন, অথচ এইবার দুই ধাপেও ১(এক) হাজার বিদেশি মেহমান আসেন নাই কেন?

(৭) প্রত্যেক বছর ৫-৭ হাজার জামাত টঙ্গীর ইজতেমা থেকে আল্লাহর রাস্তায় বের হয়, এবার ১(এক) হাজারের নিচে কেন?

(৮) সারা দুনিয়ায় তাবলীগ জামাতে কোন মাইকিং, মিটিং, মিছিল, পোষ্টার, ফেস্টুন, ওজাহাতি জোড় নাই। বাংলাদেশে তাবলীগ জামাতে এসকল নতুন জিনিসের আমদানী হলো কেন?

(৯) পুরো দুনিয়ায় দাওয়াতে তাবলীগের হক ওলামাগন একমত যে মিথ্যা, গীবত, শেকায়েত, চোগলখোরি, ঝগড়াঝাটি, ফ্যাসাদ, মারামারি, মারকাজ-মসজিদ দখল, মসজিদ থেকে জামাত বের করে দেওয়া, মুসলমানদের কাফের আখ্যা দেওয়া ইত্যাদি হারাম। তবে বাংলাদেশে এসব জায়েজ কেন?

(১০) দেওবন্দ সহ পুরো দুনিয়ার ওলামায়ে কেরামগন মাওলানা সাদ সাহেব দাঃবাঃ কে বড়ই ইজ্জতের সাথে দেখে। বিশ্বের সমস্ত মুসলমানদের কাছে যিনি অতি প্রিয় ও সম্মানের পাএ। কিন্তু বাংলাদেশের কতিপয় জমহুর কতিথ ওলামাদের কাছে তিনি মুরতাদ বা কাফের কেন?

(১১) পুরো দুনিয়ায় এখন পর্যন্ত একজন আলেমও পাওয়া যায় নাই যে, মাওলানা সাদ সাহেবকে মুরতাদ বা কাফের বা ইয়াহুদীর দালাল বলেছেন কিন্তু বাংলাদেশের কতিপয় কতিথ আলেমদের মুখে অনর্গল ফতোয়া বের হচ্ছে কেন?

(১২) দুনিয়া জোড়া যতগুলি কওমী মাদরাসা আছে ছাএরা কোরআন, কিতাব নিয়ে ব্যস্ত থাকে। কিন্তু বাংলাদেশের কওমী ছাএদের হাতে লাঠি ও ইটপাটকেল কেন?

(১৩) সারা দুনিয়ায় কওমী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের পাঠশালায় ব্যস্ত দেখা গেলেও, বাংলাদেশের কওমী শিক্ষার্থীদের মাঠে দেখা যায় কেন? যেমনঃ শাপলা চওর, এয়ারপোর্ট, টঙ্গীর ময়দান, কাকরাইল মারকাজ।

(১৪) সারা দুনিয়ায় কওমী শিক্ষার্থীদের আদবকায়দা, ভদ্রতা, বিনয়ী ইত্যাদি শিক্ষা দেওয়া হয়। বাংলাদেশে তাদের বেয়াদব ও সন্ত্রাসী বানানো হচ্ছে কেন?

(১৫) বিশ্বের সমস্ত ওলামায়ে কেরামগন সাধারণ ও বিনয়ী ভাষায় বয়ান করেন কিন্তু বাংলাদেশের কতিথ জমহুর ওলামাগন কখনো উচ্চস্বরে, আবার কখনো কর্কশস্বরে, আবার কখনো সুর মাতাইয়া, কখনো রাজনৈতিক স্টাইলে ওয়াজ করেন কেন?

(১৬) বঙ্গবন্ধু টঙ্গীর মাঠকে দিয়েছিলেন তাবলীগের কাজে কিন্তু গত ২০১৮ সাল সহ এবছর টঙ্গীর মাঠ হেফাজতে ইসলামের দখলে ছিল কেন?

(১৭) বিশ্বের কোথাও শোনা যায়না ওলামারা চুক্তিবদ্ধ হয়ে ওয়াজ মাহফিল করেন। কিন্তু বাংলাদেশে এর ব্যতিক্রম কেন?

(১৮) মসজিদ হলো মুসলমানদের অতি নিরাপদ ও পবিত্র জায়গা। কিন্তু বাংলাদেশে মসজিদ আবাদকারীদেরকে মারধোর করে বের করে দেওয়া হচ্ছে কেন?

আসুন তাহলে আমরা দেখি এর মূল কারণ কি!

বড় সহজভাবে বলা যায়ঃ

(১) হুজুগে বাঙালি।

(২) রাজনৈতিক ওলামে কেরাম।

(৩) দীনকে দুনিয়া কামাইয়ের সহজ উপায় হিসাবে ব্যাবহার করা।

(৪) বিনা তাহকিকে সিদ্ধান্ত নেওয়া।

এর সমাধান একান্ত জরুরি। অন্যথায় বাংলাদেশ মুসলিম জগৎ থেকে অচিরেই ছিটকে পড়বে। আমেরিকাতে বিশ্বের সব দেশের মানুষ বাস করে। তাদের কাছে লজ্জায় আমরা মুখ দেখাতে পারিনা। শুধু একটাই কথা, “তোমাদের দেশে কি হচ্ছে?”

আমাদের কাছে সহজভাবে এর সমাধান হলোঃ

(১) সরকার যে প্রজ্ঞাপন জারি করেছিলেন তাহার প্রতি শ্রদ্ধাশীল, আন্তরিক ও দ্রুত সেই প্রজ্ঞাপন সারা দেশে বাস্তবায়ন করা। অন্যথায় ঘরে-ঘরে, পাড়ায়-পাড়ায় যে ভাবে আগুন ছড়াচ্ছে, তাতে সরকার বাহাদুরও নিরাপদ থাকবেন না।

(২) তৃতীয় শক্তির হাত থেকে তাবলীগ জামাতকে মুক্ত করতে হবে। যেমনঃ মাদরাসা ওয়ালারা ছাএদের লেখা পড়া নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন। খানকা ওয়ালারা মুরিদান নিয়ে মশগুল থাকবেন। সবই দীনের কাজ কিন্তু ক্ষেএ আলাদা।

(৩) বাংলাদেশকে মুসলিম বিশ্ব থেকে আলাদা করার ক্ষেএে মাষ্টার মাইন্ড হিসাবে কাজ করছেন বাংলাদেশী আমেরিকান একজন ডক্টরেট ডিগ্রীধারী নিউইয়র্ক শহরের অধিবাসী এক প্রতাপশালী। যার ডান হাত হলো জনৈক মুফতি নজরুল ইসলাম এবং বাম হাত হলো জনৈক ইন্জিনিয়ার মাহফুজ। এই নেটওয়ার্ক যদি সরকার বন্ধ করতে পারে তাহলে তাবলীগ জামাতের বাংলাদেশের সমস্যা রাতারাতি ৫০ ভাগ কমে যাবে।

পরিশেষে নিবেদনঃ

বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, হোম মিনিস্ট্রি, রিলিজিয়াস মিনিস্ট্রি, ওলামে কেরাম, তাবলীগের মেহনতি ভাই-বোনদের সমীপে এই প্রবাসী বাংলাদেশি আমেরিকান হিসাবে এই অধম আল্লাহর গোলামের বিনীত অনুরোধ আসুন জিদ ও হিংসা ভুলে গিয়ে ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে পাওয়া সোনার বাংলাকে বিশ্বের মাঝে আাবারো প্রথম কাতারে দাঁড় করি। তাবলীগের মোবারক মেহনতকে আগে বাড়ার সুযোগ করে দিই।

আবারো ৯ মাস পরে নিউইয়র্কের বাফেলোতে ভ্রাম্যমান বাংলাদেশ কনস্যুলেট সার্ভিসের ব্যতিক্রম সেবার প্রথম দিন।

বাংলাদেশ কনসুলেট নিউইয়র্কের মাধ্যমে বাংলাদেশ সোসাইটি অব বাফোলো, নিউইয়র্কের সহযোগিতায় নতুন পাসপোর্ট, নো-ভিসা রিকুয়েষ্ট, জন্ম সনদপত্র, ডুয়েল সিটিজেন সেবা সহ বিভিন্ন সেবা প্রদান অদ্য শনিবার সকাল ১১টা থেকে, ৯৯৫ ফিলমোর অ্যাভেন্যু, বাফোলেতে শুরু হয়েছে। অদ্য বিকাল ৫টা এবং আগামীকাল রোববার সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৩টা অবধি এই সেবা প্রদান চলবে।

Photo Editor-20190302_135139.jpg

কনসুলেট জেনারেল অব বাংলাদেশ, নিউইয়র্ক এর পাসপোর্ট ও ভিসা উইং প্রধান ও প্রথম সচিব জনাব মোঃ শামীম হোসেন এর লাইনে দাড়ানো অপেক্ষাকারীদের সেবা প্রদানের বিষয়টি কমিউনিটির বিশেষ দৃষ্টি কাড়ে।

Photo Editor-20190302_141201.jpg

বাংলাদেশ সোসাইটি অব বাফেলো এর নেতা বোরহান আলী সহ ওয়েলকেয়ার নিউইয়র্কের মিঃ করিম, মিঃ জাহিদ হোসেনদের ফ্রি কমিউনিটি সেবা সাধারন মানুষের দৃষ্টি কাড়ে। সেবা নিতে আসা শরিয়তপুর নিবসী আলীম, নোয়াখালীর জাহিদ, বরিশালের সাহিদা বেগমসহ অনেকেই এ জাতীয় সেবায় উপকৃত হচ্ছেন বলে সেবাকারীদের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

Photo Editor-20190302_135901.jpg

উল্লেখ্য যে, গত ৯ মাস আগে “বাফেলো মুসলিম সেন্টার, কনফারেন্স হল” ৯৯৫ ফিলমোর অ্যাভেন্যুতে বিরতিহীনভাবে বাংলাদেশ কনস্যুলেট নিউইয়র্কের ভ্রাম্যমান সার্ভিসের ব্যতিক্রম সেবা নিতে ব্যাপক সংখ্যক বাংলাদেশীদের উপস্থিতি দেখা গিয়েছিল।

একই ভাবে অদ্য সাপ্তাহিক ছুটির দিনে খুব উৎসাহ নিয়ে সেবা নিতে আসা লোকদের লম্বা লাইনে দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

 

 

ঢাকা ইজতেমা ২০১৯ | মানবসভ্যতার এক ভয়ংকর কালো অধ্যায় | নিঃসন্দেহে আবু জেহেল দেখলে লজ্জিত ও শিহরিত হয়ে উঠতো |

তাবলীগ জামাতের কোন অনুসারী মতামতের জন্য দায়ী নহেন এবং অন লাইন পোর্টালটির সহিত তাবলীগের কোন সম্পর্ক নেই। মতামতের জন সম্পাদক দায়ীঃ

শেখ জামান, নিউইয়র্ক থেকে।

প্রারম্ভিকাঃ প্রাসঙ্গিক কিছু কথা।

অত্যাচারী শাসকেরা ধরার বুকে অসাম্য ও অন্যায়ের দাবানলে দ্বগ্ধ করে “বণীআদম”কে পদপিষ্ট করে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণে চরম নিষ্ঠুরতম পথ বাছাই করে নেয়। ফেরাউন ছিলেন প্রাচীন দুনিয়ার নিষ্ঠুরতম স্বৈরশাসক। তিনি নিজেকে পুরো দুনিয়ার মালিক বলে ঘোষনা দিয়েছিলেন-“আনা রাব্বুকুমুল আলা”। তার পদাঙ্ক অনুসরণ করেছে নমরুদ সহ অনেকে। ক্ষমতার উত্তাপ সবাই সহ্য করতে পারেনা। তাই ক্ষমতার উত্তাপে সবাইকে জ্বালিয়ে ছারখার করে ফেলতে চায়। তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে খুব কম মানুষ।

ঠিক তেমনিভাবে ৫৪ তম বিশ্ব ইজতেমার পরিবর্তে বাংলাদেশ ১ম জাতীয় ইজতেমা”র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সরকারের একচোখা নীতির ফলে তাবলীগের মূলধারার অনুসারীদেরকে সহ্য করতে হচ্ছে সীমাহীন ভোগান্তি। সরকারের অতি উৎসাহে পাকপন্থি “আলমী শুরা” ও তাদের দোসর হেফাজতে ইসলাম, খেলাফত মজলিস, দাওয়াতুল হক, বেফাকদের সম্মিলিত বর্বরতা ও জঘন্যতা আইয়ামে জাহেলিয়াত এর বর্বরতা ও জঘন্যতাকেও ছাড়িয়ে গেছে। যে কোন বিবেকবান মানুষ শুনলে বা দেখলে শিহরিত হয়ে উঠবে। এমনকি সেই জামানার আবু জেহেল, আবু লাহাব, উতবা গনও এই সকল ঘটনা দেখলে লজ্জিত ও শিহরিত হতে বাধ্য হতো।

যেমনটি “ঢাকা ইজতেমা ২০১৯” এর তারিখ নির্ধারণসহ সামগ্রিক নিয়ন্ত্রণ নিয়ে চরম অসমতা ও একচোখা নীতির অনুসরণ সহ জোরপূর্বক নিরীহ তাবলীগের মূলধারার অনুসারীদের উপর “অসাম্য ও অন্যায়” সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের হোম ও রিলিজিয়াস মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। পুলিশ মিনিস্ট্রি ও রিলিজিয়াস মিনিস্ট্রির সিরিয়াস অ্যাকশানে পুরা দেশের মুসলিম উম্মাহ আজ স্পষ্টই বিভক্ত হয়েছে। হেফাজত ইসলামের “হেফাজতে” দেওয়া হয়েছে জাতীয় ইজতেমার নিয়ন্ত্রণ। পুরো দেশের জনগণকে উপেক্ষা করে গুটিকয়েক মানুষের বশ্যতা স্বীকার করে নিয়েছে দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান খান ও ধর্ম মন্ত্রী জনাব এডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ। আমাদের ঐতিহ্য “বিশ্ব ইজতেমা”র কবর রচনা করে এই বছর প্রথম বারের মতো “বিশ্ব ইজতেমা”র বদলে আয়োজন করা হলো “জাতীয় ইজতেমা”। হেফাজত নেতা মাওলানা শফি, তার অনুগত খেলাফত মজলিস নেতা মাহফুজুল হক, দাওয়াতুল হক নেতা মাওলানা মাহমুদুল হাসান, ও কতিপয় বেফাক নেতাদের পরামর্শে ধ্বংস করা হলো বিশ্বের ঐতিহ্যের “বিশ্ব ইজতেমা”। পাকপন্থি “আলমী শুরা” কে দেওয়া হলো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। বিশ্বব্যাপী “আলমী শুরার” আন্তর্জাতিক চক্রের ২০১৬ সালের টার্গেটের সফলতা এনে দিল বাংলাদেশ সরকার। ফেতনাবাজ খবিসা পাকপন্থি “আলমী শুরার” আন্তর্জাতিক চক্রের ২০১৬ সালের দায়িত্বপ্রাপ্ত, বাংলাদেশের বহুল আলোচিত লোমহর্ষক ঘটনা “হলি আর্টিজান” মামলার দায় হইতে কৌশলে বেঁচে যাওয়া বিশ্বের নামকরা গোপন এজেন্সির হোতা, আমেরিকা প্রবাসী ড. আওয়াল ও বাংলাদেশী আলমী শুরার পাকিস্তানি এজেন্ট কারী যোবায়ের গংদের, হেফাজত ইসলাম ও তার উপরে বর্ণিত সহযোগী, দেওবন্দ ও বাংলাদেশ সরকারের সহায়তায় প্রথম আন্তর্জাতিক সফলতায় খুশির বন্যা বয়ে যাচ্ছে আলমী শুরার ঘরনায়। এসকল ঘটনার কোনটিই হয়তো দেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অবগত নন।

 

দুনিয়ার ক্ষণকালের ক্ষমতা বা অক্ষমতা দিয়ে আল্লাহ মানুষকে পরীক্ষা করে কিছু মানুষকে মানবতার কল্যাণে বাছাই করতে চান। সে বাছাই পরীক্ষায় অনেকে অঙ্কুরে ঝরে যায়। ক্ষমতান্ধ হয়ে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে অবিবেচকের ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়ে দেশ, জাতি ও সমাজের উপর নিজের নিষ্ঠুরতাকে চাপিয়ে দিয়ে আত্মতৃপ্তি লাভ করে। আর যারা অক্ষম তারা শাসকবর্গের আশ্রয়ে দিনাতিপাত করতে বাধ্য হয়, তাদেরকেও আল্লাহ ক্ষমতা না দিয়ে তাদের মনের অবস্থা নিরীক্ষণ করতে চান। ঠিক তেমনিভাবে দাওয়াতে তাবলীগের মূলধারার নিরীহ অনুসারীদের মনের অবস্থা নিরীক্ষণ করতে চান আল্লাহ সুবহানাতায়ালা। তাই এ সকল বিপদ মোকাবেলায় অসীম ধৈর্যের সাথে আল্লাহ সুবহানাতায়ালার অনুগ্রহ ও রহমত চেয়ে এস্তেমায়ীভাবে মূলধারার তাবলীগের অনুসারীদের “১ম বাংলাদেশ জাতীয় ইজতেমা (১৭,১৮ ও ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)” শত বাধা ও বিপত্তির মধ্যে দিয়ে অদ্য শেষ হতে চলেছে। কিছু সময়ের মধ্যে আখেরী মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে ইতিহাসে জায়গা করে নেওয়া একদিকে ত্রিপক্ষীয় নজিরবিহীন ষড়যন্ত্রের ও অন্যদিকে বেদনা বহুল ত্যাগের এই ইজতেমার।

 

২০১৯ জাতীয় ইজতেমা হাইলাইটসঃ

(১) নিজামুদ্দীন মার্কাজ এ যাবত কালের সকল বিশ্ব ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করে আসছে। সেই ঘোষণা অনুসারে ২০১৯ সালের জন্য ১১, ১২, ও ১৩ জানুয়ারি বিশ্ব ইজতেমার তারিখ নির্ধারণ করা হয়। বিশ্ব ইজতেমার ইতিহাসে এই প্রথম কোন রাজনৈতিক সরকারের হস্তক্ষেপে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের অজুহাত তুলে, ইজতেমার তারিখ পরিবর্তন হয়। যদিও ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচন জানুয়ারী মাসে হয়েছিল এবং একই মাসে বিশ্ব ইজতেমা সম্পন্ন হয়েছিল।

(২) ইজতেমা নিয়ন্ত্রণে সরকারের স্বরাষ্ট্র ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহিত ফেতনায়ে খবিসা আলমী শুরার গোপন আঁতাত। দেওবন্দ এর পরামর্শের অজুহাত তুলে “দেওবন্দ সফরের” নাটক রচনা।

(৩) ওয়াজাহাতি জোড় ও দেওবন্দ নাটকের পান্ডুলিপির রুপকার এবং সরকারের রাজনৈতিক দোসর হেফাজতে ইসলাম ও তাদের সহযোগীদের ইজতেমা নিয়ে নীল নকসা প্রনয়ণ। ত্রিপক্ষীয় কুটকৌশলে ধরাশায়ী মূলধারার তাবলীগের অনুসারীরা।

(৪) ইজতেমা নিয়ে ত্রিপক্ষীয় জোটের গোপন মিশন শুরু। প্রথম প্রতিপক্ষ ফেতনায়ে খবিসা আলমী শুরা। ২য় প্রতিপক্ষ হেফাজত ইসলাম ও তাদের সহযোগী দল। তৃতীয় প্রতিপক্ষ সরকারের স্বরাষ্ট্র ও ধর্ম মন্ত্রী। যদিও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে অবগত নহেন।

(৫) ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করা নিয়ে দফায় দফায় সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সংগে মূলধারার তাবলীগের অনুসারীদের ও ফেতনায়ে খবিসা আলমী শুরার অনুসারীদের বৈঠক।

(৬) মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে জোরপূর্বক একসাথে মিলেমিশে ইজতেমা করার বিষয়ে সরকারের চাপ প্রয়োগ।

(৭) মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে নিজামুদ্দিন মারকাজের বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ সাহেবের ইজতেমায় অংশগ্রহণ করা থেকে বিরত রাখার জন্য সরকারের কূটকৌশল অবলম্বন করা।

(৮) হেফাজতে ইসলাম, তাদের সহযোগী ও মাদরাসার ছাএদের ইজতেমা ময়দানে অংশগ্রহণ এবং সরকারী কোন বৈঠকে যোগদানে বিরত রাখা হবে এমন মিথ্যা সরকারি প্রতিশ্রুতি প্রদান।

(৯) বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ সাহেব ইজতেমায় না এলে, প্রতিপক্ষ আহমদ লাট বা ইব্রাহিম দেওলা ইজতেমায় অংশগ্রহণ করতে পারবেনা বলে সরকারের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি প্রদান।

(১০) জোরপূর্বক মিলেমিশে ইজতেমায় ব্যর্থ হয়ে পৃথক ভাবে কোন বিরতি ছাড়া ইজতেমার তারিখ ঘোষণা।

(১১) সরকারী ছুটির দিনে এবং প্রথম দুই দিন ফেতনায়ে খবিসা আলমী শুরাকে ইজতেমার অনুমতি প্রদান। সেই মোতাবেক ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার ও শনিবার তারিখ ঘোষণার পরও ১৩ ফেব্রুয়ারি বুধবার বিকাল থেকে “আলমী শুরা” কে ময়দানে প্রবেশের অনুমতি প্রদান।

(১২) সরকার কতৃক প্রতিশ্রুতি প্রদানের পর প্রতিশ্রুতি ভংগ। ইজতেমার ময়দানের প্রস্তুতি সহ, ময়দানের ৮০ শতাংশ মজমা ভরাট করা হয় হেফাজত ইসলাম ও তাদের সহযোগী এবং মাদরাসা পড়ুয়া অপ্রাপ্তবয়স্ক বিপুল পরিমান ছাএদের দিয়ে।

(১৩) সরকার কতৃক প্রতিশ্রুতি প্রদানের পর প্রতিশ্রুতি ভংগ। ইজতেমার জন্য আহমদ লাট, ইব্রাহিম দেওলার ভিসা প্রদান।

(১৪) বিরতিহীন ইজতেমার ফলে, মূলধারার তাবলীগের অনুসারীদের চরম অসমতা ও প্রতিকূল মুহূর্তে ময়দানে প্রবেশ করানো এবং পুরা একদিন ময়দান প্রস্তুতিতে লাগিয়ে রাখা।

(১৫) ১৬ ফেব্রুয়ারি ফেতনাবাজ আলমী শুরারা ময়দান ত্যাগের পূর্বে ৪ দিনের গচ্ছিত নোংরা আবর্জনা সারা ময়দানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখে।

(১৬) বিদেশি মেহমানদের বাথরুমের পানির সংযোগ নষ্ট ও কমোডের ভেতর মাটি দিয়ে ভরাট করে বাথরুম ব্যাবহারের অনুপযোগী করা।

(১৭) বিদেশি মেহমানদের জন্য রুটি তৈরির চুলা সমূহ সম্পূর্ণ রুপে ভেংগে ফেলানো।

(১৮) অজু করার জায়গার পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও বিভিন্ন মটর অকেজো করা।

(১৯) বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা।

(২০) টয়লেটের জন্য বরাদ্দকৃত ৩১ টি মটর অকেজো করা।

নব্য আবু জেহেলদের এ সকল সম্মিলিত বর্বরতা ও জঘন্যতা আইয়ামে জাহেলিয়াত এর বর্বরতা ও জঘন্যতাকে হার মানিয়েছে। আবু জেহেলরা কাবা শরীফের পবিত্রতা ও প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছিল, তাদের বর্বরতা জঘন্যতম হলেও কাবা শরিফের বিষয়ে তাদের ভীতি ছিল, তারা কাবা শরিফের পবিত্রতা নষ্ট করেছে বলে ইতিহাসে পাওয়া যায় নাই।

অথচ হেদায়েতের পূণ্য ভূমি “টংগির ময়দান” কে গত ১লা ডিসেম্বর ২০১৮ তে রক্তে রঞ্জিত করেই তারা ক্ষান্ত হয় নাই। টংগির ময়দান নিয়ে রাজনীতির পাশাপাশি গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ফেতনার ইজতেমা শেষে সেখানে লণ্ডভণ্ড করে রেখেছে। ময়দানের সবখানেই তাদের বর্বরতা ও হিংসার ছোবল রেখে গেছে। যা দেখলে আসল আবু জেহেলও লজ্জায় শিহরিত হয়ে উঠতো।

“হেলিকপ্টারে চড়িয়া মর্দ হাঁটিয়া চলিল,…..অবশেষে মর্দ ফেতনা ইজতেমা পৌঁছিল” | বিশ্ব ইজতেমা ধ্বংসের জন্য হেফাজতের তেঁতুল হুজুরকে ইতিহাস স্মরন রাখিবে।

শেখ জামান, নিউইয়র্ক থেকে।

“ঘোড়ায় চড়িয়া মর্দ হাঁটিয়া চলিল,
কিছু দূর গিয়া মর্দ রওনা হইল।
ছয় মাসের পথ মর্দ ছয় দিনে গেল!
লাখে লাখে সৈন্য মরে কাতারে কাতার,
শুমার করিয়া দেখি পঞ্চাশ হাজার।”

……ছোটবেলায় কবিতার কথাগুলো বুঝতে অনেক কষ্ট হতো। আগুন ছাড়া যেমন পানি সিদ্ধ হয় না, তেমনি ভিলেন বা খলনায়ক ছাড়া নায়কের অস্তিত্ব ও ইমেজ তেমন পোক্ত হয় না। ভিলেন যত শক্ত হবে, নায়ক তত পোক্ত হবে। ফেতনা যেমন ফেতনাবাজদের পোক্ত করে, তেমনিভাবে ফেতনার ফলে হকের আলো উজ্জীবিত হয়ে আরো উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর হয়। বাতিল না থাকলে হকের মূল্যায়ন সম্ভব নয়। অন্ধকার আছে বলেই আলোর কদর হয়। মিথ্যা আছে বলেই সত্য এতো দামী।

এই সমাজে হেফাজতে ইসলামের মতো বা তেঁতুল হুজুরের মতো কিছু আছে বিধায়, দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়েও “শেখ হাসিনাকে” তেঁতুলের কদর করতে হয়। পুলিশ মন্ত্রী ও রিলিজিয়াস মন্ত্রীকেও সিরিয়াস হতে হয়।

উপরের কবিতার লাইনের মতোই ফেতনাবাজদের “ফেতনার ইজতেমার” জনক ভন্ড বাবা “তেঁতুল হুজুর শফি” সূদুর চট্টলার রাঙ্গুনিয়া থেকে ঘোড়ার বদলে হেলিকপ্টারে চড়িয়া…চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থেকে টঙ্গীর বাটা গেটে অবতরণ করেন। অতঃপর হেলিকপ্টার থেকে নেমে সরকারি দলের তথা গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের গাড়ীতে সওয়ার করিয়া অবশেষে নিজ পায়ে হাটিয়া আল্লামা তকবদারী শফী ফেতনার ইজতেমা মাঠ ঢাকার তুরাগ নদীর তীরে দুই দিনের সফর দুই ঘন্টায় শেষ করে অদ্য জুম্মার নামাজের পর মূল ময়দানে এসে হাজির হন।

যুদ্ধক্ষেত্রে যখন সৈন্যরা আহত হয়ে পড়ে যায়, তখন দূর হতে মনে হতো মারা গেছে। অধিকন্তু যুদ্ধের ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সৈন্যদের মৃত্যু বা আহত হওয়ার সংখ্যাটি যথার্থভাবে জানা সম্ভব ছিল না। তাই বহুলাংশে অনুমানের উপর ভিত্তি করে মৃতদের সংখ্যা ঘোষণা করা হতো। বর্তমানেও এমন দেখা যায়। সেই মধ্যযুগে বিষয়টি ছিল আর অধিক অনুমানভিত্তিক। তাই লাখ লাখ সৈন্য মারা গেছে মনে হলেও পরবর্তীকালে প্রকৃত সংখ্যার কমবেশি হয়ে যেত।

শফি সাহেব ময়দানে আসার পূর্বে এমন তথ্যই জেনে আসেন যে, কোটি কোটি দেশী-বিদেশী মানুষের উপস্থিতিতে তুরাগ নদীর পাড় উপচে পড়েছে, কিছু মানুষ নদীর পানিতেও অবস্থান নিয়েছে।

আসলে শুমার শেষে দেখেন, সবই তার হেফাজতি মাদরাসার দেশীয় সৈন্য বাহিনী। আর দেশী-বিদেশিসহ সকল শুমার করিয়া দেখেন পঞ্চাশ হাজার। আরো সত্যতা পান যে, গতকাল তুরাগ নদীর পাড়ে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হওয়ায়, কিছু মানুষ ঝাপ দিয়ে নদীতে পড়ে।

এই শফি সাহেবেরই অবদান আজকের বাংলাদেশের “শেখ হাসিনার” সরকার। ঠিক তেমনিভাবেই এই শফি সাহেবের জন্য ধ্বংস হলো আমাদের ঐতিহ্য ও ঐতিহাসিক বিশ্ব ইজতেমা। রচিত হলো প্রহসনমূলক দেশীয় লোকাল ব্রান্ডের “জাতীয় ইজতেমা”।

খলনায়ক মানে ভিলেন। ভয়ংকর কেউ। কিছু কিছু বাংলা শব্দ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ইংলিশ হয়ে যায়। যেমন কেদারা হয়েছে চেয়ার, দূরালাপনী হয়েছে ফোন। ভিলেন তেমনই। ভিলেন বাস্তবে থাকে, মুভিতে থাকে, নাটকে থাকে, যাত্রাপালায় থাকে। ভিলেন মানেই ভয়ংকর কেউ। কোনোভাবেই পজিটিভ না, নেগেটিভ, শয়তানি করাই যার কাজ। হেন খারাপ কাজ নাই, যা ভিলেন করে না। খুন-লুটপাট থেকে সবকিছুই। বাংলার জমিনে “শফি” সাহেব, মাহফুজুল হক, মামুনুল হক, মাহমুদুল হাসান, কারী যোবায়ের, ড. আওয়ালদের মতো ভিলেন আছে বলেই হক ওয়ালাদের মার খেতে হয়।

ফ্রি টিকিটের পরও ফেতনাবাজদের শোডাউন সুপার ফ্লপি। ফেতনার ইজতেমা সরকারের নির্ধারিত সময়ের আগেই শুরু। সকল রকম সরকারি সুযোগ-সুবিধার পরও বিদেশিদের উপস্থিতি ৩০,০০০ এর স্থলে ৩০০ শত এর কম।

বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে যাবতীয় সুযোগ-সুবিধার পরও ফেতনাবাজ আলমী শুরার ১ম বাংলাদেশ জাতীয় ইজতেমা সুপার ফ্লপি হিসাবে ইতিহাস করে নিয়েছে।

সরকার কতৃক সরকারি ছুটির দিনে এবং ৪ দিনের প্রথম দুই দিন ফেতনার ইজতেমা আয়োজনের সুযোগ পায় ফেতনাবাজ আলমী শুরারা। খোলা ময়দানে তথা বিশ্ব ইজতেমার মাঠে সারা পৃথিবীতে এটাই ফেতনাবাজদের “প্রথম আন্তর্জাতিক ফেতনা”।

যদিও বাংলাদেশ সরকার কতৃক ফেতনাবাজদের ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করা হয় ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু এ ক্ষেত্রেও সরকার তাদের ১৪ ফেব্রুয়ারি ফজরের পর ইজতেমার মাঠ ছেড়ে দেয়।

তাছাড়া ইজতেমার ময়দান প্রস্তুতির সুযোগও সরকার ফেতনাবাজদের প্রদান করে। সরকারের পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সকল ব্যাপারেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সরকারের স্বচ্ছতার বিষয়টি সাধারনের মাঝে সন্দেহ সৃষ্টি করেছে। মূলধারার তাবলীগের অনুসারীরা আপওি জানালেও সরকারের নিরবতা দেশবাসীকে হতাশ করেছে।

মাদরাসার ছাএদের ইজতেমা ময়দানে সরকার নিষিদ্ধ করলেও, ইজতেমার ময়দান প্রস্তুতি সহ ৭০% ময়দান তাদের দিয়েই পূরন করা হয়েছে। অপ্রাপ্তবয়স্ক বিপুল সংখ্যক মাদরাসার ছাএদের ময়দানে দেখা যাচ্ছে।

সরকারি ভাবে বিদেশি মেহমান হিসাবে “আলমী শুরার” প্রধান মাওলানা আহমদ লাট ও মাওলানা ইব্রাহিম দেওলার কেউই ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেনা জানালেও উভয়ই সরকারি ভিসা নিয়ে ইজতেমার ময়দানে।

যে সকল বিদ্রোহী নিজামুদ্দিন ত্যাগী বিদেশি “আলমী শুরার” হয়ে ১ম বাংলাদেশ আলমী ফিতনার জাতীয় ইজতেমায় অংশ নিচ্ছেনঃ

(১) আলমী শুরার প্রধান ভারতের গুজরাটের জনাব, মাওলানা আহমদ লাট সাহেব।

(২) আলমী শুরার ২য় প্রধান ভারতের জনাব, ইব্রাহিম দেওলা।

(৩) আলমী শুরার অন্যতম মাওলানা যোহাইরুল হাসান সাহেব, ভারত।

(৪) পাকিস্থানের প্রধান মাওলানা খুরশীদ।

(৫) মাওলানা জিয়াউল হক, পাকিস্তান।

(৬) শেখ গাচ্ছান, সৌদি আরব।

(৭) মাওলানা আকবর শরীফ নদভী, ব্যাঙ্গালোর।

(৮) ড. সানাউল্লাহ আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়।

(৯) ভাই ফারুক, ব্যাঙ্গালোর।

(১০) ড. খালিদ সিদ্দিক, আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়।

(১১) প্রফেসর আবদুর রেহমান, তামিলনাড়ু।

(১২) শেখ ইয়ামিন, পাকিস্তান।

ফ্রি টিকিটের পরও বিদেশিদের উপস্থিতি ৩০,০০০ এর স্থলে ৩০০ শত এর কম।

গত ২০১৮ সালের পূর্ব সকল বিশ্ব ইজতেমায় বিদেশি মেহমানদের উপস্থিতি সব সময় ২৫,০০০-৩০,০০০ এর বেশি। যেহেতু ফেতনাবাজ আলমী শুরার দল এই ছিনতাই ইজতেমাকে শোডাউন করে পৃথিবী জুড়ে জানান দেয় এবং বাংলাদেশের আলমী গুরু কাজ্জাব কারী যোবায়ের সরকারের সিদ্ধান্তের আগেই বিশ্ব ব্যাপী চিঠি প্রেরণ করে। আর অপর ওয়ার্ল্ডওয়াইড আলমী গুরু ড. আওয়াল আমেরিকা থেকে হেভিওয়েট “আলমী শুরার” নেতাদের সহিত জোরদার যোগাযোগ করে ফেতনার ইজতেমা সফলের যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহন করে। একই সময় বিশ্বজুড়ে ফ্রি বিমানের টিকিটের অফার করা হয়। তারপরও ৩০,০০০ এর স্থলে ৩০০ শতের কম বিদেশি ফেতনা ইজতেমায় অংশ নিয়েছে

আর যেহেতু, মূলধারার তাবলীগের অনুসারীরা তাদের বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ সাহেবের অনুসরণ করেন এবং যেহেতু বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ সাহেব এই ইজতেমায় শরিক হবেন না, সেহেতু সারা পৃথিবীর বিদেশি মূলধারার তাবলীগের অনুসারীরা এই ইজতেমাকে বর্জন ঘোষনা করেছে, বিধায় বাংলাদেশ সরকারও “বিশ্ব ইজতেমা” কে এ বছরের জন্য জাতীয় ইজতেমা ঘোষনা করে।

এত সুবিধার পরও ফেতনাবাজ আলমী শুরার বাংলাদেশ জাতীয় ইজতেমা সুপার ফ্লপি।

টঙ্গী ইজতেমা | এ যেন আর একটি রায়বেন্ড ইজতেমা | একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ | সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্বে প্রথম বাংলাদেশে পাকপন্থি আলমী শুরার আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি।

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ীঃ শেখ জামান, নিউইয়র্ক থেকে। 

আসুন জেনে নিই গোড়ার কথা, কিভাবে শুরু হয়েছিল আলমী শুরার ফেতনার ইতিহাসঃ

যদিও “আলমী শুরার” প্রথম উৎপত্তি ২০১৫ সালে পাকিস্তানের রায়বেন্ড মারকাজে। তথাপিও প্রথমদিকে পাকিস্তান, ভারত বা বাংলাদেশের কোথাও তাদের কোন সফলতা আসে নাই। সারা দুনিয়ায় কোথাও এখনও অবধি খোলামাঠে বড় পরিসরে একটিও বড় ইজতেমা করার ইতিহাস ফেতনাবাজ “আলমী শুরার” ইতিহাসে লেখা হয় নাই। এমনকি রায়বেন্ড মারকাজেও নেই। আর আলমী গুরু আহমদ লাট ও ইব্রাহিম দেওলার পূন্যভূমি খোদ ভারতের মাটিতেও তাদের কোন ঠাঁই নেই।

এমনকি তাদের কোন সুনির্দিষ্ট মারকাজও নেই। সম্প্রতি তাদের মধ্যে শুরু হয়েছে মারকাজ নিয়ে টানাপোড়েন। ভারতের মহারাষ্ট্র প্রদেশে তাদের “নেরুল মারকাজ” নাকি পাকিস্তানের “রায়বেন্ড মারকাজ” তাদের কেন্দ্রীয় মারকাজ হবে এনিয়ে শুরু হয়েছে “আলমী শুরার” ভারত ও পাকিস্তানের নেতৃত্বের কোন্দল। যেকারনে গত বছরের শেষেরদিকে রায়বেন্ড মারকাজে ভাই আবদুল ওহাবের মৃত্যুর পরও জানাজায় অংশ নিতে যাননি আলমী শুরার প্রধান নেতা আহমদ লাট বা ইব্রাহিম দেওলার কেউই।

তাছাড়া সম্প্রতি পাকিস্তানে ভাই আবদুল ওহাবের মৃত্যুর পর কাজ্জাব ফাহিম ও মাওলানা তারিক জামিলের মধ্যে শুরু হয়েছে কোন্দল। কাজ্জাব ফাহিমের পছন্দ মতো আমীর নিযুক্ত করা হয়েছে রায়বেন্ড মারকাজে, যে আমীর কিনা কথিত শুরা সদস্যের অন্তভূক্ত নন। সারা পাকিস্তান জুড়ে ভেঙে গেছে “আলমী শুরার” অস্তিত্ব। হক আলেম সমাজ এগিয়ে এসেছে পুরাতন নিজামুদ্দিনের মেহনতকে আগের অবস্থানে নিতে।

অথচ ভিন্ন চিএ বাংলাদেশে। আসন্ন বাংলাদেশ ইজতেমাটি দিয়েই হয়তো বাংলাদেশ সরকার তাদের ইতিহাসে জায়গা করে দিচ্ছে। অথচ প্রতিদিন পৃথিবীর কোথাও থেমে নেই নিজামুদ্দিন অনুসারীদের ইজতেমা। দুনিয়া জোড়া হাজারো বড় বড় ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে একাধিক দেশে। সেই ১০০ বছরের পুরনো ধারায় নিজামুদ্দিনের তরতিবে ও নিজামুদ্দিন আলমী মারকাজের আমীরের অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে বাধাহীন অতিক্রম করে চলছে এ বিশাল মেহনতটি। কোথাও কোন সরকারি হস্তক্ষেপের নজির নেই। এমনকি পাকিস্তানেও নেই। আর ভারত সরকারতো রীতিমতো হিমশিম খেয়ে যাচ্ছে “বুলন্দ শহর” ও “আওরঙ্গবাদ” এর মতো গ্রিনিচ বুকে নাম ওঠানোর মতো পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমাবেশ নামক ইজতেমার নিরাপত্তা দিতে।

পৃথিবীতে ফেতনাবাজ ” আলমী শুরার” ছোট্ট পরিসরে আনুষ্ঠানিক ও প্রথম সফলতা আসে আমেরিকার নিউইয়র্ক থেকে।

আলমী শুরা, আলমী মারকাজ, আলমী ফিতনা, আলমী বিদ্রোহী ইত্যাদির ঠিকাদারি বাঙালী ড. আওয়ালকে গত আনুমানিক ৩ বছর আগে আমেরিকার নিউইয়র্কে এবং ২০১৮ সালে বাংলাদেশের জন্য দেওয়া হয়েছিল। যখন থেকে আলমী শুরার ফেৎনা শুরু হয়েছিল, তখন থেকে আমরা নিউইয়র্কবাসী দাওয়াতের সাথীরা একটি বিশেষ স্লোগান আলমী গুরু ড. আওয়ালের মুখে খুব বেশী শুনতে পেতাম, স্লোগানটি ছিল, “এ কাজ মিলেমিশে করতে হবে। আসুন আমরা মিলেমিশে দাওয়াতের কাজ করি।” যদিও এ স্লোগানটি ছিল ধোঁকা। যা সম্প্রতি গত কয়েকমাস ধরে বাংলাদেশ সরকারের মুখে একাধিকবার শোনা যায়। অবশেষে সরকারের নগ্ন হস্তক্ষেপে যার সফলতা গড়ায় ফেতনাবাজ “আলমী শুরার” ঘরে।

এই ফেতনার মেহনত শুরুর পর দাওয়াতে তাবলীগের সাথীদের মধ্যে ভালবাসা, মহব্বত ও যোগাযোগ কমতে শুরু করেছে। মাসওয়ারার আগে ও পরে মাসওয়ারা না করার বিধান রসূল(সাঃ) এর সময় থেকে প্রচলিত। যা দাওয়াতে তাবলীগে সব সময় চলে আসছে। এর ফলে দাওয়াতে তাবলীগে সামান্য ৩ দিন সময় দিয়ে এক নতুন সাথীর দিলও আল্লাহতালার রহমতে পরিবর্তন হয়, তার দিলে অচেনা আর এক সাথীর জন্য ভালবাসা, মহব্বত পয়দা হয়। অথচ যখন গত ৩ বছর আগে প্রথম নিউইয়র্কে ওয়ার্ল্ড প্রথম আলমী শুরার ফেৎনা শুরু হয়, তখন অবস্থা দেখা গেল আইয়ামে জাহেলিয়াত এর যুগ এসেছে। নিউইয়র্কে নিযামুদ্দিনের মারকাজ “মসজিদ আলফালাহ” রাতারাতি বনে গেল আলমী ফেৎনার প্রথম ওয়ার্ল্ড মারকাজ। মসজিদ আলফালায় তরতিবের বাইরে মাসওয়ারার আগে-পরে মাসওয়ারা। নিউইয়র্কের ব্রনক্স, ওজোনপার্ক, কুইন্স এলাকার সদ্য আলমী শুরা বনে যাওয়া দাওয়াতের সাথীগন নিযামুদ্দিনের অনুসারী বলে চলা সাথীদের সহিত এক মসজিদে একই কাতারে পাশাপাশি দাড়িয়ে নামাজ পড়া বন্ধ করে দিল। ভালবাসার পরিবর্তে মুসলমানে, ভাইয়ে-ভাইয়ে ঘৃনা শুরু হলো। বক্তব্য- পাল্টা বক্তব্য, মারকাজ দখল তথা মসজিদ দখল, হিংসা, চোখরাঙানী, গীবত, মিথ্যাচার ইত্যাদি হয়ে উঠলো নিত্য দিনের আমল। মুখথুবড়ে পড়ল ১০০ বছরের মোবারক মেহনত। তরতিবের বাইরে আগাছার মতো আলমী শুরা ঘরনার নতুন মারকাজ হিসাবে খ্যাতি পেল ব্রনক্স সেন্ট পিটারসের “বাইতুল মামুর” মসজিদ, যেখানে আলফালাহর মতো অবাঞ্ছিত ঘোষনা করা হলো নিযামুদ্দিনের সাথীদের।

আমেরিকা প্রবাসী এই ড. আবদুল আওয়াল ই সারা দুনিয়াতে প্রথম ২০১৬ সালে নিউইয়র্ক এর মারকাজ দখল করেন এবং ২০১৭ সালে আমেরিকার পেনসিলভেনিয়ায় আলমী শুরার ছোট্ট পরিসরে প্রথম ঘরোয়া এস্তেমা করেন। যেখানে ভারতের ইব্রাহিম দেওলাকে আনা হয়।

২০১৬ এর সফলতার পর এই ড. আওয়াল ২০১৭ এর ওয়ার্ল্ড এস্তেমায় মাওঃ সাদ সাহেবের ঢাকায় আগমন ঠেকাতে এক মিশনে নামেন, যেটা বিফল হওয়ায় আবারও ২০১৮ তে হেফাজত, দাওয়াতুল হক ও খেলাফত মজলিশকে কাজে লাগিয়ে মাওঃ সাদ সাহেবকে ঢাকা ত্যাগে বাধ্য করেন। আমরিকা প্রবাসী এই ড. আওয়ালকে নিয়ে দাওয়াতে তাবলীগের মাঝে হাজারো রহস্য। নিউইয়র্ক এ দাওয়াতুল হকের মুফতি জামালুদ্দিন ও মুফতি রুহুল আমিনকে কাজে লগিয়ে ২০১৬ সাল থেকে নিউইয়র্ক সহ বাংলাদেশে এই মোবারক মেহনত ধবংসে তার ভূমিকা অনেক প্রশ্নের জন্ম দেয়। তাবলীগের মেহনতের বাইরের অনেক আলেমকে বিভিন্ন প্রলোভন দিয়ে আলমী শুরার ব্যানারে এনে ওলামাদের দল ভারীতে কূটকৌশলের আশ্রয় নেন।

যেভাবে বাংলাদেশে এ মেহনত ধ্বংস শুরু হলোঃ

গত বিশ্ব ইজতেমা জানুয়ারি ২০১৮ থেকেই খোদ সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় তথা জনাব আসাদুজ্জামান খাঁন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্লপ্ত ভূমিকায় বাংলাদেশে মূলধারার তাবলীগ নিধনে মরিয়া হয়ে উঠেছে ৭১ সালের পরাজিত হানাদার দখলদারদের দোসর “হেফাজত ইসলাম” এর ভন্ড তেঁতুল হুজুর খ্যাত শফি, তার অনুসারী ওলামা-আস-সূ ফয়জুল্লাহ, খেলাফত মজলিশের ওলামা-আস-সূ মাহফুজুল হক, তার সহোদর বাংলার বিড়াল খ্যাত ওলামা-আস-সূ মামুনুল হক, ফতোয়াবাজ ওলামা-আস-সূ মুনসুরুল হক, আবদুল মালেক, চটি বাবা ওলামা-আস-সূ ওবায়েদুল্লাহ ফারুক, ওয়াজ মাহফিলের নামে লন্ডন -আমেরিকা চষে বেড়িয়ে নিজ পকেট ভারীতে পারদর্শী জর্দাপুরী খ্যাত ওলামা-আস-সূ ওলিপুরী গং। যারা স্ব-ঘোষিত পাকি আলমী শুরার বাংলার মীরজাফর হেভিওয়েট ওলামা-আস-সূ যোবায়ের গংদের শক্তিশালী করার এক মিশন নিয়ে মোটা টাকার বিনিময়ে কাজ করে যাচ্ছে। আর এদের সকলের পিছনে রয়েছে অদৃশ্য এক শক্তি। যে অদৃশ্য শক্তি পৃথিবী জুড়ে এই মোবারক মেহনত ধবংসের খেলায় মেতে উঠেছে।

যারই ধারাবাহিকতায় অদৃশ্য শক্তি ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ এর বর্তমান প্রধানকে ব্যাবহার করে। ভারতের মোদী সরকারকে ঘনিষ্ট ওলামা-আস-সূ মুফতি খ্যাত কাজ্জাব “ওজাহাত কাসেমী” কে দিয়ে তাবলীগের বিশ্ব আমীর হযরত মাওলানা সাদ সাব দাঃবাঃ এর বিরুদ্ধে কাটপিস বয়ান দিয়ে ফতোয়া চেয়ে এই মোবারক মেহনতের ধবংসের সূচনা করে।

অদৃশ্য শক্তি পাকিস্তানের কতিপয় ওলামা-আস-সূ ও ভারতের গুজরাট এর জনাব আহমদ লাট কে তাদের আইডল হিসাবে ২০১৬ সালে আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু করলেও, ভারতের নিজামুদ্দিন মারকাজ দখলে ব্যর্থ হয়ে বিভিন্ন কৌশল খুঁজতে থাকে। এমনকি পাকিস্তানেও তারা সুবিধা করতে না পেরে, ভারত ও পাকিস্তানের পর তারা বাংলাদেশ কে বেছে নেয়।

বাংলাদেশ কে ব্যাবহারে অদৃশ্য শক্তি প্রথম খুঁজে পায় নিউইয়র্ক শহরে বসবাসকারী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম ডিজিটাল আাই,ডি প্রোজেক্টের উপদেষ্টা, পরীক্ষিত তাবলীগের সাথী, সাবেক আমেরিকার নাসার প্রকৌশলী, বাংলাদেশের নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালকদের একজন জনাব ড. আবদুল আওয়াল সাহেবকে।

নিউইয়র্ক শহরে তাবলীগের সাথীদের খুবই কাছের মানুষ ছিলেন এই ড. আওয়াল। একই সংগে দাওয়াতের কাজের সুবাদে বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রয়েছে তার ব্যাপক পরিচিতি। তাছাড়া ড. আওয়াল Bangladesh Youth Environmental Initiative (BYEI) এর Advisory Board এর সদস্য হিসাবে বাংলাদেশ সরকারের সাথে রয়েছে সখ্যতা। এ সকল বিষয় বিবেচনায় অদৃশ্য শক্তি ড. আওয়ালের সহায়তায় প্রথম সফলতা পায়। শুরু হয় বিশ্ব ব্যাপী আলমী শুরার অফিসিয়াল সফলতা। পৃথিবীর মধ্যে প্রথম নিউইয়র্ক শহরের মারকাজ দখলের মধ্য দিয়ে ফেতনা বাজ আলমী শুরা তাদের কব্জায় নেয় নিজামুদ্দিনের মারকাজ মসজিদ ” আল-ফালাহ”। ২০১৭ সালে পৃথিবীর প্রথম আলমী শুরার সফল ইজতেমাও করেন এই ড. আওয়াল আমেরিকার পেনসিলভেনিয়া, যেখানে মাওঃ ইবরাহীম দৌলা সাহেবকে ভারত থেকে আনা হয়। ২০১৭ সালে কানাডার অন্টারিও তে পাকিস্তানের মাওঃ তারিক জামিল সাহেবকে দিয়ে আলমী শুরার প্রথম সফল জোড় করান এই ড. আওয়াল। একের পর এক সফলতার পর ড. আওয়ালকে দায়িত্ব দেওয়া হয় ২০১৭ সালের বিশ্ব ইজতেমা টঙ্গীর মাঠ দখল ও বিশ্ব ইজতেমায় আমীর মাওঃ সাদ সাহেবের বাংলাদেশ আগমন ঠেকানোর।

ড. আওয়াল আমেরিকার নিউজার্সির একজন সিনেটর এর চিঠি ব্যাবহার করে ২০১৭ সালের বিশ্ব ইজতেমায় আমীর মাওঃ সাদ সাহেবের ভিসা বন্ধ করার চেষ্টা করেন। কিন্ত ভিসা বন্ধ করতে না পারায় ড. আওয়াল ঐ বছরই হেফাজত আমীর শফি সাহেবের সাথে দেখা করেন। এবং তার নিজ ছেলের পক্ষের আত্মীয় খেলাফত মজলিশের মাহফুজুল হক ও মামুনুল হকদের সহ হেফাজত নেতাদের সাথে ২০১৭ সালের বিশ্ব ইজতেমা বন্ধ করার জন্য একাধিক কৌশল নেন। যেটা ২০১৭ বিশ্ব ইজতেমার পর আমেরিকা ফিরে মসজিদ আল-ফালাহ তে নিজ মুখে বয়ান করেন। এ কাজে নিউইয়র্ক শহরের দাওয়াতুল হকের মুফতি জনাব জামাল উদ্দিন তাকে সহায়তা করেন। আর একই সময়ে দাওয়াতুল হকের বাংলাদেশের আমীর মাহমুদুল হাসান সাহেবকেও ব্যাবহার করেন। জানা যায়, জনাব মাহমুদুল হাসান সাহেব ও নিউইয়র্ক এর মুফতি জামাল উদদীন পরস্পর আত্মীয়। আর অন্যদিকে খোদ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পীর সাহেব হলেন জনাব মাহমুদুল হক সাহেব।

ইত্যাদি বিষয় কাজে লগিয়ে ২০১৭ সালের বিফলতা ২০১৮ সালের সফলতা বয়ে আনে। রাতারাতি হিরো বনে যান আলমী গুরু ড. আওয়াল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে কাজে লাগিয়ে ভারতে ফিরিয়ে দেন ওয়ার্ল্ড আমীর মাওঃ সাদ সাহেবকে।

দেওবন্দ এর মুফতী আবুল কাসেম বাংলাদেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি লিখেন যে, “আমরা মাওলানা সাদ সাহেবের রুজুর উপরে সন্তুষ্ট নই এবং তিনি আহলে সুন্নত ওয়াল জামাত থেকে প্রান্ত সীমায় আছেন। তাই আপনাদের দায়িত্ব তাঁকে টঙ্গী ইজতেমায় বাধা দেয়া।” এর উপরে ভিত্তি করেই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে মাওলানা সাদ সাহেবকে ফেরত পাঠানো হয়।

মাওলানা আরশাদ মাদানী সম্পূর্ণ ব্যাপারে মুফতী আবুল কাসেম সাহেবকে পূর্ণ সমর্থন দেন। তিনি ভারতেই অবস্থান করতে থাকেন, তবে তাঁর ভাই মাওলানা আসজাদ মাদানীকে বাংলাদেশে পাঠান। এবং বিভিন্ন মজমাতে হাজির হয়ে সাদ সাহেবের বিরোধীদের সহযোগিতার (মাওলানা সাদ সাহেবের আগমন বাধাগ্রস্থ করা) দায়িত্ব দেন।

এছাড়া বাংলাদেশের মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষকদের রাস্তায় নামাতে তিনি তাঁর ভাইকে ব্যবহার করেন।

এই সকল ধারাবাহিকতায় আলমী শুরা “ওজাহাতি জোড়ের” নামে মাদ্রাসার ছাএদের দিয়ে একের পর এক মসজিদ, মারকাজ দখল শুরু করে। কাকরাইল মারকাজে মাওঃ যোবায়ের ও সৈয়দ ওসিফুল ইসলাম কে নিষিদ্ধ করলেও, এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পুলিশ পাহারায় মাওঃ যোবায়ের কে কাকরাইল মসজিদে আসা যাওয়ার সুযোগ করে দেয়। একের পর এক বাধার মুখেও সরকারের উচ্চ মহল, তাবলীগের মূলধারার সাথীদের সহযোগিতা না করে, উৎসাহিত করতে থাকে হেফাজতের ছএছায়ায় থাকা আলমী শুরাদের।

এমতাবস্থায় ধর্ম মন্ত্রণালয় গত বছরে একটি সুন্দর পরিপএ জারী করলেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে পরদিন পরিপএটির অকাল মৃত্যু ঘটে। কাকরাইলে জ্যামার বসানো সহ মূলধারার শুরাদের মারপিটের বিষয়েও সরকারের নিরবতা জাতিকে ভাবিয়ে তোলে।

জেলায় জেলায় সফল ইজতেমা বন্ধ করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দুই পক্ষের সাথে বৈঠক করেন। বিশ্ব ইজতেমা সহ জেলা ইজতেমা, ওজাহাতি জোড়, ওয়াজ-মাহফিলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। তাবলীগের মূলধারার সাথীগন সব মেনে নিলেও, ওজাহাতি জোড় চলতেই থাকে।

টঙ্গীর ময়দানে মূলধারার তাবলীগ সাথীদের ৫ দিনের জোড় বন্ধ করার জন্য মাদরাসার ছাএদের দিয়ে ওলামা-আস-সূ গন ২ সপ্তাহ যাবত টঙ্গীর মাঠ গেট বন্ধ করে পুলিশী সহয়তায় দখলদার বাহিনীর মতো দখল করে থাকে অথচ নিরহ মূলধারার সাথীগন যখন গত ৩/৪ দিন আগে সরকারের সহায়তা চেয়ে ঢাকায় সাংবাদিক সম্মেলন করলেন, প্রধান মন্ত্রীর সরাসরি সহায়তা কামনা করলেন, যখন দেশী-বিদেশী পএিকায় এ বিষয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট প্রকাশ পেল, তার পরও সরকার ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিরব, কিন্তু কেন? কেন সরকার কোন ব্যাবস্থা নিলেন না বরং হেফাজত জংগীদের পুলিশ পাহারার ব্যাবস্থা করে দিলেন? মূলধারার সাথীগন যখম জোড়ের জন্য সমবেত হলো, পুলিশ পাহারায় হেফাজত গুন্ডারা ঝাপিয়ে পড়ল নিরীহ তাবলীগের অনুসারীদের উপর, ১লা ডিসেম্বরের ঐ নারকীয় হামলায় ২ জন নিরীহ তাবলীগের মূলধারার অনুসারীকে হত্যা করা হলো, জখম হলো অনুমান ২০০ এর অধিক।

এসবের মানে কি? সরকারের জংগী কানেকশন এই চরমপন্থী হেফাজত। তাদের দিয়েই সরকার আগামীতে দেশ শাসন করতে চায়।

কাজ্জাব কারী যোবায়েরঃ

মাওঃ জোবায়ের, সাবেক আহলে শুরা, কাকরাইল মারকাজ (নিজামুদ্দিন), বর্তমান ফেতনায়ে খবিশা পাকপন্থি “আলমী শুরা” এর বাংলাদেশী এজেন্ট।

গত জানুয়ারি ২০১৮ টংগি বিশ্ব ইজতেমায় তিনি নিজেই নিজের প্রকৃত পরিচয় দাওয়াতে তাবলীগের সাথীসহ সারা দুনিয়ার মুসলমানদের সামনে তুলে ধরেন। এর পরও আজ অবধি নিজেকে “আহলে শুরা” কাকরাইল পরিচয় দিয়ে আসছেন।

কে তাকে আহলে শুরার গৌরবান্বিত পরিচিত দিয়েছিলেন? কোন মেহনত তাকে এত উঁচুতে উঠিয়েছিল? মুন্তাখাব হাদীসের মতো দাওয়াতে তাবলীগের মহামূল্যবান বইটির বাংলা অনুবাদের এত বিরল সম্মান কে তাকে এনে দিয়েছিল?

আমাদের সকলেরই উওরসমূহ জানা আছে।

এত বড় প্রতারনা ও ধোঁকাবাজির পরও কি ভাবে এখনও তিনি সেই পুরানো পরিচয় দেশ ও জাতির সামনে তুলে ধরেন? একবারও কি তিনি তার বর্তমান পরিচয় কি তা নিয়ে ভাবেন না?

গত ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ তার স্বাক্ষরিত নিজেকে আহলে শুরা, কাকরাইল মারকাজ দাবীর বিষয়টা হাস্যকর। তিনি কাকরাইল মারকাজের কেউ নন। কাকরাইল মারকাজের জন্ম যেহেতু নিজামুদ্দিন থেকে, আর তার আহলে শুরার পদবিও নিজামুদ্দিন থেকে, সেহেতু পাকি আলমী শুরার এজেন্ট হিসাবে তার কোন চিঠির গুরুত্বও দাওয়াতে তাবলীগের সাথীদের কাছে নেই। তছাড়া তার মিথ্যাচার সরকারের মিথ্যাচারকেও ছাড়িয়ে গেছে। সরকার আসন্ন ফেতনার ইজতেমার তারিখ “আলমী শুরার” জন্য ফেব্রুয়ারি ১৫ ও ১৬ ঘোষনা করলেও, কারী যোবায়ের সেই তারিখ ১৪,১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি উল্লেখ করে চিঠি ইস্যু করেন।

টঙ্গী ইজতেমা ও রায়বেন্ড ইজতেমা, একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠঃ

যখন নিজামুদ্দিন মারকাজ থেকে জামাত রায়বেন্ড যায় তাঁদের অনেক রকম শর্ত মেনে নিতে বাধ্য করা হয়। এসব শর্ত গ্রহণ করার পরই কেবল তাঁরা সীমিত পরিসরে অংশ নিতে পারেন।

সারা দুনিয়া দেখেছে রায়বেন্ড ইজতেমার কোন অংশে নিজামুদ্দিনের কোন সাথীকে কোন বয়ান দেয়া হয় নি। সব আমল ফিৎনায়ে খবিসা আলমী শূরার প্রবক্তাগণই করেছেন। এবং সম্পূর্ণ নাটকের কুশীলব ছিলেন মৌলভী খুরশীদ, মৌলভী ফাহিম গং।

গত ২০১৮ টঙ্গী ইজতেমাতেও নিজামুদ্দিনের কেউ ছিলেন না। সব উমুর আলমী শূরার লোকেরাই চালিয়েছেন, যেমনঃ কারী যুবায়ের, মাওলানা ফারুক, মাওলানা রবিউল হক; যাদের সাহায্য ও পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন মুফতী নুমানী সাহেব, মাওলানা আরশাদ মাদনী এবং মাওলানা আসজাদ মাদানী।

২০১৯ এর আসন্ন ইজতেমা তারই ধারাবাহিকতা। তবে এবার “সরকারি কূটকৌশল” বাড়তি সুবিধা হিসাবে ফেতনাকারীদের ফেতনা বাড়াতে “আগুনে ঘি ঢালার” কাজ করবে।

সরকারের বৈরী আচরণের শিকার মূলধারার তাবলীগের অনুসারীরাঃ

সরকারের চাপে জোর করে মিলেমিশে ইজতেমায় মূলধারার তাবলীগের অনুসারীদের প্রবলতর আপওির মুখে সরকার সিদ্ধান্ত বদলালেও, সরকারের তরফ থেকে সকল প্রকার সুযোগ পেয়েছে ফেতনায়ে খবিসা পাকপন্থি “আলমী শুরা”। সরকারি ছুটির দিনে ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার ও শনিবার তাদের ফিতনার ইজতেমার সুযোগ করে দেয় সরকার।

বিগত ২৪/১/২০১৯ তারিখ পুলিশ মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, কৌশলে ধরাশায়ী করেছেন মূলধারার তাবলীগের অনুসারীদের। যেখানে মূলধারার মুরব্বিদের কৌশলে পুলিশ মন্ত্রী “বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ” আসন্ন ইজতেমায় অংশ নিবে না মর্মে ইজতেমার সাথে যুক্ত সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ১০ দফা যৌথ চুক্তি মিডিয়ায় প্রকাশ করেন।

যৌথ ১০ দফার চুক্তিনামার ৩ নম্বর দফায় মাঠ সজ্জায় দায়িত্ব দেওয়া হয় ফেতনাবাজ “আলমী শুরা” কে।

যৌথ ১০ দফার চুক্তিনামার ৮ নম্বর দফায় ফেতনাবাজ “আলমী শুরা” দের জন্য সুনির্দিষ্ট ভাবে “হাজী কাম্প” তাদের বিদেশি মেহমানদের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে, মূলধারার তাবলীগের অনুসারী বিদেশি মেহমানদের বিষয়ে কোন সরকারি সিদ্ধান্ত নেই। যেটা সম্পুর্ন সরকারের বৈরী আচরণের বহিঃপ্রকাশ।

Photo_1549566069248.png

ইতিহাসের একালের চার মীরজাফরঃ

বিশ্ব ইজতেমা বাংলাদেশ বিষয়ে বিশ্ব ইজতেমার জন্ম লগ্ন থেকেই আলমী মারকাজ নিজামুদ্দিন এর তরতীব অনুসরন করা হচ্ছে। এমতাবস্থায় কাজ্জাব মাওঃ যোবায়ের এর ভূমিকা এমনই যে, উনি নিজেকেই দাওয়াতে তাবলীগের বিশ্ব আমীর ভাবা শুরু করে দিয়েছেন। পৃথিবী জুড়ে “আলমী শুরার” কয়টি ইজতেমায় তিনি বয়ান করেছেন? উওর আসবে “জিরো”.. ০০০০! তারপরও তিনি “হিরো”…কে বানালো তাকে “হিরো”? এই সরকারের ছএছায়ায় কাজ্জাব যোবায়ের আজ হিরো। আলমী শুরার ইতিহাসে ড. আওয়াল আর তার নমটি উজ্জ্বল হয়ে লেখা থাকবে। যেমনটি বাংলার ইতিহাসে “মীরজাফর” এর নামটি লেখা হয়ে আছে। আর তার সংগে খলনায়কের সহযোগী হিসাবে ইতিহাসে লেখা থাকবে বাংলার পুলিশ মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও রিলিজিয়াস মন্ত্রী আবদুল্লাহ এর নাম, যেমনটি লেখা আছে ঘসেটি বেগমের নাম। (১) ড. আওয়াল, (২) কারী যোবায়ের, (৩) পুলিশ মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, (৪) রিলিজিয়াস মন্ত্রী আবদুল্লাহ গন ইতিহাসের এ কালের মীরজাফর হিসাবে দাওয়াতে তাবলীগের অনুসারীদের নিকট স্মরনীয় হয়ে থাকবেন।

Tongi Ijtema, is not an Ijtema, it is likely a Treaty with Mainstream Tabligh Followers, like a very little taste of another Hudaibiya Treaty | The opposition are jointly by the Government of Bangladesh, Militant group Hefazat-e-Islam and Pakistan-based “Alami Shura”

What is Ijtema and how it came?

The tradition of Ijtema was initiated by Muhammad Ilyas al-Kandhlawi from it’s headquarters Nizamuddin Markaz, Delhi, India.

The Ijtema is non-political, and therefore it draws people of all persuasion. Prayer is held for the spiritual adulation, exaltation and welfare of the Muslims community.

This immensely popular program gives the people of the different countries an opportunity to interact with Muslims from other countries.

Moulana Abul Hasan Ali Nadvi mentioned in a biography of Moulana Ilyas that, in the 1930s, they used to have the annual ijtema at Mewat and they had a fixed place for ijtema. Moulana Ilyas used to take part in these ijtemas regularly. The biggest ijtema was held at Nuh of the district of Gourgano from 28 to 30 November 1941 (Nadvi, 2006:118). That was the notable Ijtema in terms of participating number of devotees. According to Nadvi (2006), there were about 20-25 thousand people in that ijtema. This ijtema was successful in many ways; one of them are to be able to send many jamaats to the various places in India such as Khorza, Aligarh, Agra, Buland city, Mirath, Panipath, Sonipath etc. In April 1943, they had sent a jamaat in Karachi (a major city of Pakistan). The first Ijtema held in East Pakistan (now Bangladesh) was in 1954 in Dhaka, the capital of Bangladesh. Later that year they had organised another massive ijtema in Khulna, a south-west district of Bangladesh. Since then they have been organising ijtema every year in a regular basis. During this time, the centre of Tabligh Jama’at in Bangladesh was based on the Lalbagh Shahi Mosque. Due to limitation of space, they had to move to the current location at Kakrail. Background of Tabligh Jama’at in Bangladesh, In 1954 there were about 15-20 thousands participants took part in the first ijtema. However, by 1965 even Kakrail had become too small for the ijtema. Therefore, they had to think about a new place for the ijtema. In the same year, they had to shift the venue at Tongi near Dhaka. Since then, Tabligh Jama’at has been regularly organising ijtema at Tongi.

The Bishwa Ijtema is an annual gathering of Muslims in Tongi, by the banks of the River Turag, in the outskirts of Dhaka, Bangladesh. It was one of the largest peaceful gatherings in the world but World Ijtema has lost its heritage since last 2018.

World Ijtema must be done under the supervision of World Markaz Nizamuddin and through ensuring secure participation of the world Amir. World Ijtema must be free from conflict and politics and everyone’s participation must be secure.

But What happening now?

Tongi Ijtema 2019 | Forcibly imposed | Another horrible conspiracy in history |

The Tablighi Jama’at was founded in 1926 in Mewat, India, by Maulana Muhammad Ilyas, an Islamic scholar.

Tablighi centre and the de facto headquarters of the movement in the Indian capital Delhi Nizamuddin.

The Tabligh presents itself as a selfless, apolitical, multi-ethnic entity.

Its followers participate in its activities only on a part-time basis – and estimates range as widely as 80 million-120 million.

Tabligh’s roots pre-date the partition of South Asia — perhaps this is why it manages to attract hundreds of thousands of devotees to their Ijtema every year in Tongi (Bangladesh), Nizamuddin (India) and Raiwind (Pakistan).

The notion of da’wah pervades most of the Muslim world as well as countries that have a significant Muslim populace.

Not only has Tabligh weathered many storms during the 90-plus years of its history, it remains one of the fastest-growing religious movements whose influence has been felt across this country and indeed elsewhere too.

But some differences played out in public only recently. There is a rebel group escaping from Nizamuddin and set up their 13-member advisory council, which was created in Pakistan Raiwind Markaz in the year of 2015. This is a group of high political luxuries and power greedy people. This group are leading by Darul Uloom Deoband. Darul Uloom Deoband in their fatwa, Maulana Saad (TJ World Amir) is accused of disrespecting the scholars and earlier prophets and putting forward “unacceptable” new interpretations of the concepts of the Quran and Sunnah.

What Maulana Sa’ad said, “To teach deen [religion] for a wage is to sell deen,” he is quoted as saying on another occasion. “People who commit zina [adultery] will enter jannah [paradise] before those who teach Quran for a wage.” and some others topics, which was not proved against Maulana Sa’ad.

Throughout the Muslim world, Darul Uloom Deoband has lost his image. Even in India, their followers have decreased. Only Bangladesh is their resort. Since Bangladesh follows Deoband, they are easily utilizing Bangladesh. In addition, the events of 1971’s defeat are remembered for Pakistan.

And the same time the Pakistan supporters “Hefazat-e-Islam” have a good ties of the government of Bangladesh, so that Pakistan-based “Alami Sura” used the Hefazat-e-Islam to control the Ijtema.

From the begging about Tongi Ijtema 2019, Forcibly imposed by the Bangladesh Government Home and Religious Affairs Ministry. Another horrible conspiracy in history. Pakistan-based “Alami Shura” and their Bangladeshi counterpart “Hefazat-e-Islam” behind the conspiracy. Bangladesh Government has a militant connection with “Hefazat-e-Islam”, and for that Bangladesh government supports them. The government trying to arrange the upcoming Ijtema according to the formula given by “Hefazat-e-Islam”.

Where did the so-called “Alami Shura” get Ijtema? They do not know where their house, where their home. Do they know what their origin is? Do they have any Markaz or any Amir? So why they trying to capturer Nizamuddin properties?

Seems the BD government is trying heart and soul to implement agenda of Alami Shura in tricky way.

Because of the firm determination of Nizamuddin followers (to obeyed the Nizamuddin Markaz Mashawara), the BD Government finally changed the decision.

Biased behavior of the government of Bangladesh

Although the mainstream Tabligh followers have objected to the behavior of the government since the beginning. The government was silent even after the killing of innocent Tabligh’s followers, mosque lock, Markaz and mosque occupation by the “Hefazat-e-Islam”.

Proof of Bangladesh government’s ruthless role is found, when permission is given to Ijtema for Fitan-e-Khabisa “Alami Sura” on public holidays (February 15-16, Friday and Saturday) in the country.

And the opposition thinks, the BD government allocated the weekdays to followers of Tabligh’s (February 17-18, Sunday and Monday). Which is very sad.

Tongi Ijtema treaty, like another Hudaibiya treaty.

In the worst behavior of the BD government, the followers of Tabligh may enjoying a very little taste and victory like the Treaty of Hudaibiya. Allah helps only from the oppression of the oppressor.

BREAKING NEWS | Tongi Ijtema on February 17 and 18, 2019 | Finally the Nizamuddin tour brings the success of Bangladesh National Ijtema.

The final meeting about Ijtema 2019, was held at 4pm, today at Bangladesh Religious Affairs Ministry.

After Completing the meeting it was decided that there will be no combined Ijtema, with Pakistan-based “Alami Sura”, and it will be ” Bangladesh National Ijtema” instead of “World Ijtema”. Both group will be participate separately and organised single Ijtema.

The followers of “Nizamuddin” are truth and the followers of Pakistan-based “Alami Sura” are falsehood. So it’s the conflict of Truth with falsehood. The conflict between truth and false is inevitable.

In such a situation, Ijtema combined with “Alamir Shura”, on the one hand, is risky, on the other hand, immoral.

On January 29-30, 2019, mainstream Tabligh’s elders went in Delhi Nizamuddin to decide whether to take part in Ijtema in conjunction with militant Hefazat groups under the Pakistani Alami Sura. At that time Nizamuddin decided that Ijtema will not be combined, but Ijtema has to be single.

World Ijtema must be done under the supervision of World Markaz Nizamuddin and through ensuring secure participation of the world Amir. World Ijtema must be free from conflict and politics and everyone’s participation must be secure. Though it’s not sure either World Amir or Nizamuddin Jama’at will be participate. And also upcoming Ijtema declared as a “Bangladesh National Ijtema” from the Bangladesh government.

Tongi Ijtema 2019, Forcibly imposed by the Bangladesh Government Home and Religious Affairs Ministry. Another horrible conspiracy in history. Pakistan-based “Alami Shura” and their Bangladeshi counterpart “Hefazat-e-Islam” behind the conspiracy. Bangladesh Government has a militant connection with “Hefazat-e-Islam”, and for that Bangladesh government supports them. The government trying to arrange the upcoming Ijtema according to the formula given by “Hefazat-e-Islam”.

Because of the firm determination of Nizamuddin followers (to obeyed the Nizamuddin Markaz Mashawara), the BD Government finally changed it’s decision (instead of forcibly imposed).

Nizamuddin followers will start Bangladesh National Ijtema on Sunday February 17th, after Fajr.

Ijtema will continue for two days (February 17-18, 2019) and final Dua will be held on Monday February 18th, after Isha. Kakrail Nizamuddin Shura Syed Wasiful Islam will be under the overall supervision of Ijtema.

On the other hand, Pakistan-based “Alami Shura” will leave the Ijtema Ground at the end of their Fitna Ijtema on the 16th, after Asar. (Pakistan-based Alami Sura Fitna Ijtema on February 15-16).