উলমাদের ক্বদর বা ইলমের বাহকদের সম্মান করা শিখেছি তাবলীগে গিয়ে….

লেখকঃ মোঃআব্দুল বাকী আরজান।

উলমাদের ক্বদর বা ইলমের বাহকদের সম্মান করা শিখেছি তাবলীগে গিয়ে,,

শুধু আমি নয়,,লাখো আওম এটা শিখেছে তাবলীগে গিয়ে,,, অন্যথায় তো আওমরা মনে করতো, আলেমরা বছইরা কামলা অর্থাৎ বাৎসরিক কাজের শ্রমিকের মত,,,

নামাজ পড়াবে, মক্তব পড়াবে, বেতন নিবে, মিলাদ আর দাওয়াত, মৃত ব্যক্তির জানাজা ও চার দিন চল্লিশা ছাড়া আর কি কাজে লাগতে পারে আলেমরা, (?)

এমনই ধারণা ছিল সাধারন মানুষের, ,,

পক্ষান্তরে আজ দেখুন কোটি লোকের উপরে আছে কমছে কম তিনদিন সময় দিয়েছে,, এরা হয় তো সকলে মুত্তাকী হয়নি,,

কিন্তু মাত্র তিনদিন সময় লাগানোর পরেই সে কওমী মাদরাসা ও আলেমদের যথার্ত ইজ্জত দিচ্ছেন, দান সদকা, মাদরাসা ও মসজিদের জিম্মাদারী তাহকিকের সাথে পুরা করছেন,,,,

এসব হয়েছে দাওয়াত ও তাবলীগে কিছু সময় দেওয়াতে,, এমন অনেক লোক আছে, যারা নিজে চিল্লা বা বেশি সময় দিতে পারেনি, কিন্তু বাচ্চাগুলোকে মাদরাসায় পড়াচ্ছে,,

মুলকথা হলো বঞ্চিতরা হিংসার বশবর্তী হয়ে তাবলীগের বিরুদ্ধাচার করে,,, মুলত তারা এজন্য বিরুদ্ধাচার করে যে, তাদের আশানুরূপ সম্মান বা পথপদবি পায়নি,,,

তাবলীগের কোন সাথীরাই উলামা বিদ্বেষী নয়, এক শ্রেনির মুনাফিক কিসিমের লোকেরা তাবলীগ ও উলামায়ে দেওবন্দকে মারমুখী ভূমিকায় দাড় করাতে চায়,,, তাদের মিশন এটাই, কাকরাইলের শুরায় স্থান না পাওয়ায় বিভিন্ন রকম অপপ্রচার চালিয়ে আসছে বহু বছর ধরেই,, মাশোয়ারা না মেনে নিজেই নিজেরমত করে তাবলীগ করছে,, আবার কাকরাইলো দখলে নিতে চায়, এই শ্রেনির ফিৎনাবাজরা অফলাইনে ও অনলাইনে মিথ্যা প্রচারনা চালিয়ে সাধারন মানুষকে দ্বীনের এই মেহনত থেকে বিমুখ করে শয়তানের তাবেদারী করছে,,,,,

আর উলামা বলতে গেলে যদি সকলেই আহলে হক হতেন,, তবে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, এ কথা বলে যেতেন না,, যে নিকৃষ্ট মাখলুক হলেন আমার উম্মতের উলামায়ে সূ’রা,,
জাহান্নামে প্রথমেই নিক্ষেপিত হবেন উলামায়ে সূ’রা,,

এখন এই উলামায়ে সূ’গণ তো আর মঙ্গলগ্রহের আধিবাসি নন, তারা তো আমাদের চারপাশের উলামাদের মধ্য থেকেই,,, নাকি,,,?? এই নিশ্চিত উলামায়ে সূ’গণই দাওয়াত ও তাবলীগের বিরুদ্ধাচরণ করেন,,, আহলে হক উলামারা কখনই বিরোধীতা করেননি,এখনো করছেননা, ভবিষ্যতেও করবেননা,, ইনশা আল্লাহ,,

Advertisements

Leave a Reply