A very worst abusive dishonesty conspiracy has been reported about a plan, how to capture the Dhaka Tablighi KAKRAIL MARKAZ (তাবলীগের কাকরাইল মারকাজ দখলের ষড়যন্ত্র ফাস)

(English to Bengali)

Based on a reliable sources, the news of a very worst abusive dishonesty conspiracy has been reported. BEFAQ, HEFAZAT, Dawatul Haque and ALOMI SURA of Bangladesh made a secret meeting two days ago. To capture the “KAKRAIL MARKAZ” and to the Kakrail, those who are in favor of Nizamuddin will be expelled from Kakrail Marakaz.

Their plan to do this work is:

Plan No. 1:

Without taking a leave of 15 Shaban madrasas, Tasakil will be named 8/10 thousand Madrasah students in Kakrail. Then this gentleman will take the students against the side of our Nizamuddin against the rioting. Make a situation like this, they try to capture and control the Kakrail Markaz. If any major riot can be done, then on the other side, they will be try to arrest by the false accusations of rioting on our elders, Wasif Bhai, Nasim Bhai, Professor Yunus Shikdar Sir and others. According to sources, such a case is already arranged. They are just waiting for the event to happen.

Plan No. 2:

Between 8-10 thousand students will be surrounded by encircleing Kakrail Markaz. The way our Hazrat Ji Kakrail was in Markaz, the Madrassa students kept marching around.

Here’s what we need to do:
1. More and more sathi brothers the City of Dhaka (at least every halaka 100 people) regularly to guard the Kakrail Marakaj and come to Protect our Markaz. After the same situation was created in Nizamuddin in 1947, Hazrat Yusuf Sab said: “It is not obligatory to save life, save the Markaz”

2. Ask the law enforcement agencies to complete the entire matter and take necessary action.

To save the beloved Kakrail Marakaz from our lives, to save Tablighi’s work – we all have got ourselves ready to come to Kakrail and get other brothers ready also. If we are in a little shadow, Allah will save us from the defeat and will honor us and will protect our Markaz. Insha Allah.

বাংলা :

নির্ভর যোগ্য সূত্রে একটি অতি জঘন্যতম আলমী ফেতনাবাজদের ষড়যন্ত্রের খবর পেলাম। বাংলাদেশের বে-ফাক, হেফাজত, দাওয়াতুল হক ও নব্য আলমী শুরাগন গত ২ দিন পূর্বে একটা গোপন মিটিং করেছেন। কাকরাইল মারকাজ দখল করার জন্যে এবং কাকরাইলে যারা নিযামুদ্দিনের পক্ষে, তাদেরকে কাকরাইল মারকাজ থেকে বের করে দেওয়া হবে।

এই কাজটি করার জন্যে উনাদের প্লান হলো :

প্লান নং ১ :
১৫ই শাবান মাদ্রাসা গুলিকে ছুটি না দিয়ে তাশকিলের নাম ৮/১০ হাজার মাদরাসার ছাত্র কাকরাইলে নিয়ে আসবেন। তারপর এই কোমলমতি ছাত্রদেরকে আমাদের নিযামুদ্দিনের পক্ষের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিবেন দাঙ্গা-হাঙ্গামা করার জন্যে। এই রকম একটা পরিস্থিতি তৈরী করে মারকাজ দখলের একটা পায়তারা করবেন। যদি কোন বড় ধরনের দাঙ্গা উনারা করতে পারেন, তার উপর দিয়ে আমাদের বড়দের উপর দাঙ্গা সৃষ্টির মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে ওয়াসিফ ভাই, নাসিম ভাই, প্রফেসর ইউনুস শিকদার স্যার সহ অন্যান্যদের গ্রেফতার করাইবেন। সূত্র মতে, এই ধরনের একটা কেইস আগে থেকেই সাজানো আছে। উনারা শুধু ঘটনা ঘটানোর অপেক্ষায় আছেন।

প্লান নং ২ :
বে-ফাক ৮/১০ হাজার ছাত্র একত্রিত করে কাকরাইল ঘেরাও করবে। যেভাবে আমাদের হজরতজী কাকরাইল মারকাজে থাকা অবস্থায় মাদ্রাসার ছাত্রদের দিয়ে মারকাজ ঘেরাও করে রেখেছিল।

এহেন পরিস্থিতিতে আমাদের করণীয় হচ্ছে :
১. বেশি থেকে বেশি ঢাকা শহরের সাথী (কমপক্ষে প্রতি হালকা থেকে ১০০ জন করে) নিয়মিত কাকরাইল মারকাজ পাহারা দেয়ার জন্যে ও হেফাজত করার জন্যে আসা। ১৯৪৭ সালে নিজামুদ্দিনে একই পরিস্থিতি সৃষ্টি হবার পর হজরতজি ইউসুফ সাহেব (রহ:) বলেছেন : “জান বাঁচানো ফরজ না, মারকাজ বাঁচানো ফরজ”।

২. সম্পূর্ণ বিষয়টি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানানো এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ করা।

আমাদের প্রানের চেয়ে প্রিয় কাকরাইল মারকাজ বাঁচানোর জন্যে, তাবলীগের মেহনতকে বাঁচানোর জন্যে – আমরা সব ভাই নিজে তৈরী হয়ে কাকরাইল চলে আসি, অন্য ভাইদেরকেও তৈরী করে নিয়ে আসি। আমাদের অল্প হরকত হলে আল্লাহ তা’লা বাতিলকে খতম করে মারকাজের হেফাজত করে আমাদেরকে সম্মানিত করবেন ও আমাদেরকে আমাদের মারকাজ উপহার দিবেন ইনশা আল্লাহ।

Advertisements

2 thoughts on “A very worst abusive dishonesty conspiracy has been reported about a plan, how to capture the Dhaka Tablighi KAKRAIL MARKAZ (তাবলীগের কাকরাইল মারকাজ দখলের ষড়যন্ত্র ফাস)

Leave a Reply