“ভারতবর্ষসহ আরব, মালায়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলংকা তথা দুনিয়া জোড়া সকল সময় লাগানো ওলামাগন নিযামুদ্দিনের সহিত”

হজরতজী সাদ কান্ধলবী দাঃবঃ নাকি গুন্ডা বাহিনী দিয়ে নিজামউদ্দিন দখল করে নিয়েছেন।মার্কাজের সব বড়রা নাকি ছেড়ে চলে গেছেন।(নাউযুবিল্লাহ)

আমি সেই গুন্ডাবাহিনীর নাম হতে শ্রেষ্ঠ কয়েকজন আকাবির গুন্ডার নাম দিলাম! জী,এই গুন্ডা উলামারাই মাশোয়ারা করে সাদ সাহেবকে হজরতজী বানিয়েছেন ;আজ তাদেরকেও গুন্ডা বানিয়ে দেয়া হচ্ছে!

তৎকালিন হজরতজী এনামুল হাসান রহঃ এবং ১০ জন আকাবিরিন উলামা শুরা আজকের হজরতজী কে যে আমির বানিয়ে গিয়েছিলেন, তারাও কি গুন্ডা ছিলেন ?

জী ,আমাদের দেশের কিছু উলামা হজরতরা সাদ সাহেবের বিরোধিতায় এত এত বানোয়াট তথ্য প্রচার করেছেন যে, যা শুনে হাজারো সাথী কনফিউজড হয়ে গেছেন। তারা আলমি মারকাজ ও আমিরের বিরোধিতায় নেমে নিজের আখিরাত বরবাদ করেছেন। তাদের এই মিথ্যা তথ্য গুলোর বিচার করার ভার আল্লাহ উপর ছেড়ে দিলাম।

যেমন ,তাদের একটি কমন মিথ্যা হচ্ছে – আলমি মার্কাজ সাদ সাহেবের গুন্ডা বাহিনী কতৃক দখল হয়ে গেছে, নিজামউদ্দিন দখল হয়ে গেছে এবং ওখানে বড়রা চলে গেছে ;যেন একাই সাদ সাহেবই দখল করে কাজ করছেন। (নাউযুবিল্লাহ)

অথচ ,সত্য হল হাজারো উলামা নিজামউদ্দিনের সাথে জুড়ে আছেন। তাদের সকলের নাম লিখতে হলে ২ দিনের বেশী দরকার। এখানে শুধু তাদের নাম দেয়া হলো; যারা হজরতজী ইলিয়াস রহঃ হতে শুরু করে হজরতজী সাদ সাহেব দাঃবঃ পর্যন্ত সাথী হয়ে বিশ্ব ব্যাপি আজো কাজ পরিচালনা করে যাচ্ছেন।

আমরা মূলতঃ বাংলাদেশের ও আমেরিকার তাকাজায় আহমদ লাট হাফি ও শায়েখ ইব্রাহিম দেওলা হাফি কে সব সময় আসতে দেখে ভেবে নিয়েছি হয়তো – তারা ছাড়া নিজামউদ্দিনে আকাবির বড় হজরত হয়তো আর কেওই নাই।আসলে ব্যপারটা এমন নয়।একেক দেশ ,একেক প্রদেশে ,একেক আকাবিরদের বার বার পাঠানো হত এবং সেই ভাবেই তারা বেশী পরিচিত হয়ে উঠতেন।

(১) হজরত মিয়াজি মাওঃ ফুল সাব হাফিযাহুল্লাহ মেওয়াত (হজরতজী ইলিয়াস রহঃ এর যামানা কাজে লেগে আছেন এবং এখনো নিজামউদ্দিনের সাথে আছেন )

(২) হজরত মিয়াজি আজমত সাহেব হাফিযাহুল্লাহ (হজরতজী ইউসুফ সাহেব রহ হতে ৪০ বছরের মত কাজে লেগে আছেন এবং ৪০ বারের বেশী ৪ মাস করে পায়ে দল জামাতে আল্লাহর রাস্তায় সময় লাগিয়েছেন)

(৩) মাওলানা ইয়াকুব সাহেব হাফিযাহুল্লাহ ( যিনি হজরতজী ইউসুফ সাহেব রহ সমখয় হতে মেহনতে লেগে আছেন ,মাদারাসায়ে কাশিফুল উলুমতে শিক্ষিকতা করতেন )

(৪) শায়েখ ইউসুফ সাহেব হাফিযাহুল্লাহ , শ্রীলংকা ( ১৯৬২ হতে নিজামউদ্দিনে আছেন এবং আমানত রুমের জিম্মাদারি পালন করতেছেন, ১ সাল আল্লাহর রাস্তায় লাগিয়ে মাদরাসায় পড়াশোনা শুরু করেন পরে আলেম হয়ে ফারেগ হন এবং আবার ৩ সাল আল্লাহর রাস্তায় লাগান হজরতজী ইউসুফ সাহেব রহঃ জামানা হতে )

(৫) মুফতি আব্দুল সাওার হাফিযাহুল্লাহ (হজরতজি ইউসুফ সাহেব রহঃ হতে এখনো কাজ করে যাচ্ছেন, কাশিফুল উলুমে বড় কিতাব পড়াচ্ছেন)

(৬) শায়েখ আলাউদ্দিন হাফিযাহুল্লাহ মেওয়াত (হজরতজী ইউসুফ সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন)

(৭) শায়েখ ইলিয়াস বাড়াবাংকি হাফিযাহুল্লাহ (হজরতজী ইউসুফ সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন )

(৮) প্রফেসর আব্দুল আলিম হাফিযাহুল্লাহ (হজরতজী ইউসুফ সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন)

(৯) শায়েখ আলী মিয়া নদভী রহঃ খাছ শাগরিদ মাওঃ গাজাইল সাব হাফিযাহুল্লাহ ৪০ বছর ধরে মার্কাজে মুকিম এবং আরব খিওায় বয়ান করেন, হজরত এনামুল হক রহঃ সাথী।
.
(১০) মাওঃ শামসুর রহমান হাফি (হজরতজী এনামুল হাসান সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন)

(১১) মাওঃ আব্দুল হান্নান সাহেব হাফি (হজরতজী এনামুল হাসান সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন)

(১২) শাইইখুল হাদিস আব্দুর রশীদ হাফি (মাওঃ উবায়দুল্লাহ রহঃ এর সন্তান) ; হজরতজী এনামুল হাসান সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন।

(১৩) মুফতি আব্দুর রহীম হাফি (হজরতজী এনামুল হাসান সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন)

(১৪) নাফিস সাহেব হাফি (হজরতজী এনামুল হাসান সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে জুরে কাজ করে যাচ্ছেন)

(১৫) বিশ্ব বিখ্যাত আলেম ইউসুফ সালানি রহঃ এর সন্তান মাও ইয়াকুব হাফি (হজরতজী এনামুল হাসান সাহেব রহঃ হতে এখনো নিজামউদ্দিনে কাজ করে যাচ্ছেন)

(১৬) মাওঃ জামশিদ হাফি (মার্কাজ নিজামউদ্দিনের মাশোয়ারায় কাজ করে যাচ্ছেন)

(১৭) মুফতি শরিফ হাফি (মার্কাজ নিজামউদ্দিনের মাশোয়ারায় কাজ করে যাচ্ছেন)

(১৮) মুফতি শওকত সাহেব হাফিযাহুল্লাহ (মার্কাজ নিজামউদ্দিনে মাশোয়ারায় কাজ করছেন)

(১৯) মুফতি শামিম সাহেব হাফি (মার্কাজ নিজামউদ্দিনের মাশোয়ারায় কাজ করে যাচ্ছেন)

(২০) মাওঃযুয়ারুল হাসান সাহেব হাফি ( মার্কাজ নিজামউদ্দিনের তাকাজা পুরো করছেন )

(২১) মাওঃ আসাদুল্লাহ সাহেব হাফিযাহুল্লাহ (মার্কাজ নিজামউদ্দিনের তাকাজায় কাজ করতেছেন )

পরবর্তীতে কুল হিন্দের প্রায় ১৩ থেকে ১৫ হাজার উলামা হতে আরো লম্বা একটা নাম প্রকাশ করবো ইনশাআল্লাহ।

এরপরও যদি কেও মার্কাজ নিয়ে এবং হজরতজী মাওঃ সাদ সাব দাঃ বঃ কে নিয়ে বানোয়াট তথ্য দেয় ; তাহলে বুঝবেন উনাদের উদ্দেশ্য তাবলিগ বিরোধিতা ছাড়া আর কিছুই না।

Advertisements

2 thoughts on ““ভারতবর্ষসহ আরব, মালায়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলংকা তথা দুনিয়া জোড়া সকল সময় লাগানো ওলামাগন নিযামুদ্দিনের সহিত”

Leave a Reply