তাবলীগ জামাত ধবংসের নেপথ্য….

মাসওয়ারা (পরামর্শ) না মানার ফল আবারো ওয়ার্ল্ড এস্তেমা টংগিতে প্রথমবারের মত প্রমাণিত হয়েছে। ওয়ার্ল্ড এস্তেমা এ যাবৎকাল দাওয়াতে তাবলীগের মারকাজ নিজামউদ্দিন এর মাসওয়ারা অনুযায়ী চলছিল, তাই সামান্যতম কোন সমস্যা ছাড়াই গত ১৯৬৭ খ্রিস্টাব্দ থেকে প্রতি বছর এই সমাবেশ নিয়মিত আয়োজিত হয়ে আসছিল আল্লাহতালার মেহেরবানিতে অদ্ভুত এক নিয়মে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশে। বিদেশী মেহমানদের উপস্থিতিও দিনে দিনে বাড়ছিল। যখন কাকরাইলের মুরব্বী মাও: যুবায়ের, রবিউল, ফারুক গন আমেরিকা প্রবাসী ডা: আওয়ালের ফাদে পা বাড়ালো, তখন তারা এ কাজের আমীরকে (মাও: সাদ) উপেক্ষা করা শুরু করলো, কাকরাইলে হেফাজতের গুণ্ডাদের আমদানী করলো, কাকরাইলের মাসওয়ারার মঞ্চায়ন হলো যাএাবাড়ীর মাদ্রাসায়, এ কাজের আমীরকে ঠেঙানো হলো তসলিমা নাসরিনের চেয়েও জঘন্যতম ভাবে। একজন দীনের দায়ীকে এ কেমন উপহার দিল হেফাজত ইসলামের ভণ্ড আলেম সমাজ! এর পর আর কি বাকী রইল? উম্মতের মধ্যে বিভক্তিকরণ তথা দাওয়াত তাবলীগের মধ্যে যারা এই বিভক্তির কাজ শুরু করলো তাদের কি আল্লাহতালার কাছে জবাব দিতে হবে না? দেওবন্দের নামে যারা মিথ্যাচার করলো, সত্যকে সাধারন মুসলমানদের থেকে আলাদা করলো, এ কাজের আমীর সম্পর্কে যারা মিথ্যাচার করলো, তাদেরকে অবশ্যই আল্লাহ্‌র বিচারের পাশাপাশি মানুষের কাছে, বিবেকের কাছে অতি নিকট ভবিষ্যতে জবাবদিহি করতে হবে।

Advertisements

2 thoughts on “তাবলীগ জামাত ধবংসের নেপথ্য….

Leave a Reply